আধুনিক

কতো শপ্ন দেখেছি,

কতো শপ্ন দেখেছি কতো ছবি একেছি,
কতো গান গেয়েছি আমি তোমায় নিয়ে।
সবই তোমায় নিয়ে, সব ই তোমায় নিয়ে ২

কতো শপ্ন দেখেছি কতো ছবি একেছি,
কতো গান গেয়েছি আমি তোমায় নিয়ে।
সব ই তোমায় নিয়ে, সব ই তোমায় নিয়ে ২

তুমি আমার জীবনে ফুটা ফুল,
ভালোবেসে করেছো আকুল।
তুমি আমার জীবনে ফুটা ফুল,
ভালোবেসে করেছো আকুল।

কতো পথ চলেছি, কতো শুখে ভেসেছি,
কতো তরী বেয়েছি আমি তোমায় নিয়ে।
সব ই তোমায় নিয়ে, সব ই তোমায় নিয়ে ৪

কতো শপ্ন দেখেছি কতো ছবি একেছি,
কতো গান গেয়েছি আমি তোমায় নিয়ে।

শুধু তোমার ঐ রিদয় ও ছায়ায়,
অনুরাগে ভাবে ভাসায়।
শুধু তোমার ঐ রিদয় ও ছায়ায়,
অনুরাগে ভাবে ভাসায়।

কতো কাছে এসেছি কতো চেয়ে থেকেছি,
কতো মগ্ন রয়েছি আমি তোমায় নিয়ে।
সব ই তোমায় নিয়ে, সব ই তোমায় নিয়ে ৪
কতো শপ্ন দেখেছি কতো ছবি একেছি,
কতো গান গেয়েছি আমি তোমায় নিয়ে।

তুমি আমার বুকের ঝর্না হয়ে,
সব ব্যাথা দিয়েছো ধুয়ে।
তুমি আমার বুকের ঝর্না হয়ে,
সব ব্যাথা দিয়েছো ধুয়ে।

কতো ভুল করেছি কতো দু:খ সয়েছি,
কতো মালা গেথেছি আমি তোমায় নিয়ে।
সব ই তোমায় নিয়ে, সব ই তোমায় নিয়ে ৪

কতো শপ্ন দেখেছি কতো ছবি একেছি,
কতো গান গেয়েছি আমি তোমায় নিয়ে।
সবই তোমায় নিয়ে, সব ই তোমায় নিয়ে ২

বাউল

রঙ্গশালা

গান : রঙ্গশালা
গীতিকার : আমিনুল ইসলাম আপন

দয়াল তোমার রঙ্গশালায় কত যায়গায় ঘুরিলাম
আসল নকল না চিনিয়া ভব মায়ায় মজিলাম

তত্ব সুখে নিত্ব দিনই করলাম কত ভুল
ভাঙ্গা তরী বাইয়া গেলাম পাইনা কোন কোল
নবী আমার পারের নাইয়া তাহারে জানাই সালাম ….ঐ

নামাজ রোজা না রাখিলাম ওগ দায়াল চান
তুমি দয়াল দয়ার সাগর করনা আছান
কোন জায়গায় বাধ না দিয়া নদীর পানি সেচিলাম ….ঐ

রাসুল আমার হিরা কাঞ্চন উম্মতের আপন
আমিনুল কয় ভুল করিলাম না করলাম সাধন
দিনে দিনে দিনযায় গইয়া না লইলাম আল্লাজীর নাম …. ঐ

Uncategorized

অনুভবে আছো তুমি …..

অনুভবে আছো তুমি হৃদয় গভীরে
রাতদিন ভাবনায় খাটে তোমার পরশে,,
তুমি আমার ভালোবাসা ফুলের মুকুল
তুমি আমার প্রেম সাধনার পুতুল,,,,
ও…
ভালবাসার ফুলদানিতে দুটি হৃদয় এক হয়েছে
মাতাল হাওয়ায় মধূ বনে
মিলনের সুর বাজে গো মনে মনে
দুটি হৃদয়ের কোনযৌবনে কাজল আঁখির পরশ মিলেছে,,,
ও…
প্রেম কুমারী “তাসলিমা”
মিটিয়ে দাও গো আমার প্রেম পিপাসা
আসায় থাকি আমি “লিয়ন” পাইতে দর্শন
আমায় ছেড়ে কবু তুমি দূরে যেওনা…

বাউল

ভন্ড প্রেম

ভন্ড প্রেমের ভন্ডামিতে ভাংলি কেন মন,,,,,,,,,,,,,।।
কোন পাপেতে কোন দোষেতে করলি রে এমন,,,,,,,,,,।।

তোর কথাতে ভিক্তি করে দিয়েছিলাম মন
তার জবাবে দিলি আমায় প্রেমও জ্বালাতন,,,,,,,,,,,,
কোন পাপেতে কোন,,,,,,,,,
ভাংবি যদি মনটা আমার কেন বাধলি ঘর মিছা মিছি প্রেম করিবার ছিলো কী প্রয়োজন,,,,,,,,,,,,
কোন পাপেতে কোন,,,,,,,,,
বি এম রাজে কয় ভাবিয়া শুনরে পাগল মন প্রেম করিস না ভন্ডের সাথে করবি গুরুর শন,,,,,,,,,,,,,,

কোন পাপেতে কোন,,,,,,,,,,

ভন্ড প্রেমের ভন্ডামিতে ভাংলি কেন মন,,,,,,,,

আধুনিক

Sajna || সাজন || Lyrics

সাজনা এই দু চোখে চেয়ে দেখ না
আমি লুকিয়ে রেখেছি যতন করে সেই তোমার দেয়া স্মৃতি আক্রে ধরে রেখে সারাক্ষণ তুমি কোথায় বল না
সাজনা এই দু চোখে চেয়ে দেখ না

আমারি মনেতে তোমারি ছায়া যে খেলা করে রাত্তি দুপুর
তোমারি ভাবনায় মিশে যে থাকে আমার সারা দুপুর
তবু কেন তোমায় পাশে পাই না
সাজনা এই দু চোখে চেয়ে দেখ না

স্বপ্নগুলো নিঝুম অরণ্য আর এ বিছিন্ন মন
তোমারি ভাবনায় আকাশ সম ব্যাথাগুলো করে বিচরন
তবু কেন আমায় তুমি বোঝনা
এ জীবন তুমি ছাড়া শূন্য হায়
সাজনা এই দু চোখে চেয়ে দেখ না

আধুনিক

Megher Niche|| মেঘের নিচে || Lyrics

মেঘের নিচে ঢেকে থাকা নীল আলোড়ন ,
অস্থির চিত্তে গেয়ে যাওয়া প্রকৃতির গান,
আঙ্গুল ছুঁয়ে যাওয়া বৃষ্টির জল
অনুভূতির ছোঁয়ায় পাওয়া অসীম স্বপ্নের দল

তুমি কি আর এসব ভাবনায় হারাও আনমনে
হারাও কি আর আগেরই মতো
চোখেরই নরম জলে

বালিশ চেপে বোবা কান্না কাঁদায় আমায় শুধু
একাকীত্বের বোবা বেদনা ভাবায় আমায় শুধু
স্মৃতিগুলো ঘিরে থাকে আমাকে
আর বৃষ্টি নামায়
মনের মাঝে না বলা কথা গুলো
আমায় ভাবায়

তুমি কি আর এসব ভাবনায় হারাও আনমনে
হারাও কি আর আগেরই মতো
চোখেরই নরম জলে

পপ সঙ্গীত

হাররে জীবন

হাররে জীবন তুই কেন এমন এই ভাল এই মন্দ বোঝার উপায় নাই কাছে পেতে চাইলে তো’রে কাছে না’হি পাই হাররে জীবন। জীবনের মাঝে আছে আশার প্রদ্বীপ নিভে যাবে হঠাৎ যে সব চারিদিক তবুও জীবন চলে স্রোতের ধারায় যায় যাক এভাবে জীবন ধারা হাররে জীবন তুই কেন এমন।৷৷৷৷ ৷৷৷৷৷৷৷ মনে হয় জীবনটা বড় বিষময় জ্বলেপুড়ে হয়ে যাবে একেবারে ক্ষঅয় সেই জীবনেরই নেই যে আশা তবুও বাধি মোরা সুখের বাসা। হায়রে জীবন তুই কেন এমন………

ছায়াছবি

বিদায় দাও গো বন্দু তোমরা,

বিদায় দাও গো বন্দু তোমরা এবার দাও বিদায়,

বিদায় দাও গো বন্দু তোমরা এবার দাও বিদায়,
মায়ের ছেলে মায়ের কোলে ফিরে যেতে চায়।
মায়ের ছেলে মায়ের কোলে ফিরে যেতে চায়।
বিদায় দাও গো বন্দু তোমরা এবার দাও বিদায়,

স্রোতের শেওলা যামন ভাশে,
ভাসলাম আমি তেমন করে এই ভবের পরবাসে।
স্রোতের শেওলা যামন ভাশে,
ভাসলাম আমি তেমন করে এই ভবের পরবাসে।

কুলের দিশা তবু পেলাম নাতো কভু,
কুলের দিশা তবু পেলাম নাতো কভু,
সেথা ঘরে ঘরে গুরতেছি তবু,
পেলাম নাতো ঠাই,পেলাম নাতো ঠাই।

বিদায় দাও গো বন্দু তোমরা এবার দাও বিদায়,
মায়ের ছেলে মায়ের কোলে ফিরে যেতে চায়।
বিদায় দাও গো বন্দু তোমরা এবার দাও বিদায়,

স্নেহ মায়ার কাঙ্গাল হয়ে, দারে দারে ফিরলাম কত,
এই অবুজ মন্টারে লয়ে।
স্নেহ মায়ার কাঙ্গাল হয়ে, দারে দারে ফিরলাম কত,
এই অবুজ মন্টারে লয়ে।

এই বুজেছি শ্বার মিছে এ সংসার,
এই বুজেছি শ্বার মিছে এ সংসার,
হেথায় আপন বলে মানতে পারি,
এমন কেহ নাইরে, এমন কেহ নাই,
এমন কেহ নাই—-

ছায়াছবি

মনটা ছিলো পথে পড়ে,

মনটা ছিলো পথে পড়ে, বুকে ছিলো ব্যাথার ঢল,
সঙ্গে ছিলো তোমার চিঠি, বন্দু ছিলো আঁখিজল।
মনটা ছিলো পথে পড়ে, বুকে ছিলো ব্যাথার ঢল,
সঙ্গে ছিলো তোমার চিঠি, বন্দু ছিলো আঁখিজল।

তুমি আছো আর কিছু চাই না না গো,
তুমি আছ আর কিছু চাই না।

যে চোখে শ্রাবণ ছিলো, সে চোখে স্বপন আজ,
যে বুকে আগুন ছিলো, সে বুকে ফাগুন আজ।
যে চোখে শ্রাবণ ছিলো, সে চোখে স্বপন আজ,
যে বুকে আগুন ছিলো, সে বুকে ফাগুন আজ।

তোমাকে হারিয়েছি, তাইতো হারাই না,
তুমি আছো আর কিছু চাই না না গো,
তুমি আছো আর কিছু চাই না।

যে আশা ভিদুর ছিলো, সে আশা মধুর আজ,
যে মুখে বাদল ছিলো, সে মুখে বধুর লাজ।
যে আশা ভিদুর ছিলো, সে আশা মধুর আজ,
যে মুখে বাদল ছিলো, সে মুখে বধুর লাজ।

তোমাকে ফুরিয়ে গেছি, তাইতো ফুরাই না।
তুমি আছো আর কিছু চাই না, না গো
তুমি আছো আর কিছু চাই না।

মনটা ছিলো পথে পড়ে, বুকে ছিলো ব্যাথার ঢল,
সঙ্গে ছিলো তোমার চিঠি, বন্দু ছিলো আঁখিজল।
তুমি আছো আর কিছু চাই না না গো,
তুমি আছ আর কিছু চাই না।

ছায়াছবি

ওগো রূপসী তোমারে ভালবেসেছি,

ওগো রূপসী তুমারে ভালবেসেছি আমি,
কাছে এসো দূরে সরে যেওনা,
কেন এতো রাগ বুজনা কি গো অনুরাগ,
তুমি, বলিতে যা চাই কেন শোনো না।

দিতে পারি এনে ও রাঙ্গা চরনে,
আকাশের ও চাঁদ তারা সূর্য।
দিতে পারি এনে ও রাঙ্গা চরনে,
আকাশের ও চাঁদ তারা সূর্য।

হেলাতে সরিয়ে মরে দিও না,
ওগো রূপসী তুমারে ভালবেসেছি আমি,
কাছে এসো দূরে সরে যেও না।

রাতে নীদ হারা, দিনে দেখি তারা,
করেছো পাগল যে আমারে।
রাতে নীদ হারা, দিনে দেখি তারা,
করেছো পাগল যে আমারে।

কেন যে তবুও ধরা দাও না,
ওগো রূপসী তুমারে ভালবেসেছি আমি,
কাছে এসে দূরে সরে যেও না।

ওগো অভিমানী, তবু কি বুজো নি,
তুমারে বিনা মিছে সবই যে।
ওগো অভিমানী, তবু কি বুজো নি,
তুমারে বিনা মিছে সবই যে।

একবার ফিরে কেন চাও না।
ওগো রূপসী তুমারে ভালবেসেছি আমি,
কাছে এসো দূরে সরে যেও না,

কেন এতো রাগ বুজনা কি গো অনুরাগ,
তুমি, বলিতে যা চাই কেন শোনো না।
ওগো রূপসী তুমারে ভালবেসেছি আমি,
কাছে এসো দূরে সরে যেও না,

ছায়াছবি

তুমি কাছে এসো বন্দু,

তুমি কাছে এসো বন্দু আমি ভালোবাসা পেতে চাই,
আমি মনের মানুষ হতে চাই।
তুমি কাছে এসো বন্দু আমি ভালোবাসা পেতে চাই,
আমি মনের মানুষ হতে চাই।

আমার মনেরই আসা ওগো দাওনা মিটিয়ে,
ধন্য করো আমারে প্রেমের পরশ দিয়ে।
তোমার চলার পথে সাথী হতে যে চাই,
আমি মনের মানুষ হতে চাই।

তুমি কাছে এসো বন্দু আমি ভালোবাসা পেতে চাই,
আমি মনের মানুষ হতে চাই।

আমায় একাকি ফেলে দূরে যেওনা চলে,
দুঃখ নিয়ে জীবনে ভাসি চোখেরই জলে।
ভেঙ্গে পায়েরই শিকল হারিয়ে যেতে যে চাই,
আমি মনের মানুষ হতে চাই।

তুমি কাছে এসো বন্দু আমি ভালোবাসা পেতে চাই,
আমি মনের মানুষ হতে চাই।
তুমি কাছে এসো বন্দু আমি ভালোবাসা পেতে চাই,
আমি মনের মানুষ হতে চাই।

ছায়াছবি

শহর থেকে দূরে,

শহর থেকে দূরে বহু দূরে-
এই মন আমার হারিয়ে গেলো,
যেন রূপ কথারই দেশে।

শহর থেকে দূরে বহু দূরে-
এই মন আমার হারিয়ে গেলো,
যেন রূপ কথারই দেশে।
শহর থেকে দূরে বহু দূরে-

এখানে সুরের মেলা পাপীয়া দোয়েল এর গানে,
এখানে সুরের মেলা পাপীয়া দোয়েল এর গানে,
আলো আর ছায়ার লূকচুরী স্বপ্ন ছড়ায় প্রানে,
ঐ দূর বলাকার পাখায়, এই মন চলেছে ভেশে।

শহর থেকে দূরে বহু দূরে-
এই মন আমার হারিয়ে গেলো,
যেন রূপ কথারই দেশে।
শহর থেকে দূরে বহু দূরে-

এখানে দীঘির ও জলে হংস মিথুনের খেলা,
এখানে দীঘির ও জলে হংস মিথুনের খেলা,
বকুল এর গন্ধে মাতাল হাওয়া তুস্তূ সারা বেলা,
দূর আমলক্ষির ও বনে বাতাস ঘুমায় আভেশে।

শহর থেকে দূরে বহু দূরে-
এই মন আমার হারিয়ে গেলো,
যেন রূপ কথারই দেশে।
শহর থেকে দূরে বহু দূরে—

বাউল

কার ঘরে বাতি জ্বলে

কার ঘরে বাতি জ্বলে
এ নিশি রাইতে

আমারে তুই তর মায়ায়
অরে আমারে তুই তর মায়ায়
রেখে দে এ নিশি রাইতে
কার ঘরে বাতি জ্বলে এ নিশি রাইতে

আমার দুঃখের বাশির সুর তর ঘরে কি যায়না
এত দুঃখের বাশিটারে গুনে দরাইসনা আমার গুনে দরাইসনা।
আমি ঋনি থাকিবোরে
অরে আমি ঋনি থাকিবোরে তর এ নিশি রাইতে
কার ঘরে বাতি জলে এ নিশি রাইতে

তর লেমের বাতি আলোয় আমার মন ভড়ে দে
এই জীবনের দুঃখের ইতি একবার টেনে দে আমার একবার টেনে দে।
চন্দ্র সাক্ষী রাখিয়ারে
অরে চন্দ্র সাক্ষী রাখিয়া তরে ডাকি এ নিশি রাইতে
কার ঘরে বাতি জ্বলে এ নিশি রাইতে।

মামুনে কয় দোহাই তর আলো নিবাইসনা
অন্ধকারে মনের মাঝে খেলে বেদনা আমার খেলে বেদনা।

আমি তর লেমের বাতির
অরে আমি তর লেমের বাতির
পাগল এ নিশি রাইতে
কার ঘরে বাতি জলে এ নিশি রাইতে।

আধুনিক

ভালোবাসি তোমায়

হে প্রজাপতি সম নাম তোর—
কী টানা টানা চোখ
আর ভ্রুর মেলে ধরা,
ঐ গোলাপী ঠোঁটের
ও: কী পাগল করা নেশা লাগানো চুম্বন—
আজও আমায় মাতাচ্ছে।
হে তিতলী তুই আমার প্রিয়তমা রে !
প্রেমের কলি নব প্রেমের প্রানের ফুল,
আমার নব স্বাদে আছে তোর প্রানের রেশ
আমার যত যৌবন তার অর্দ্ধেক তুই।
তোকে আমি দিই আমার বুকের ফুল
রাখ রে তুই তোর খোঁপাতে,
ভরা আমার জীবন তোর রসের জাদুতে
মাতিয়ে রাখ আমায় এভাবেই।

বিবিধ

প্রানের শিতল ছোঁয়া

প্রানের শিতল ছোঁয়ায়
কে তুমি কামিনী
আমার প্রানের রসকে করো পাগল॥
আমার হৃদয়কে করো উদ্বেলিত
তোমার কেশের গন্ধে
তোমার নূপুরের ছন্দে
তোমার অপার রুপের আমার প্রানে চেয়ে থাকা।
আমার প্রান দিলাম তোমার হাতে
রেখে দাও আজীবন তোমার বুকেতে
থাকতে দাও এভাবেই
বাঁচতে চাই সেভাবেই॥