আধুনিক

মনের জানালা ধরে

মনের জানালা ধরে উঁকি দিয়ে গেছে
যার চোখ তাকে আর মনে পড়ে না।

চেয়ে চেয়ে কত রাত দিন কেটে গেছে
আর কোন চোখ তবু মনে ধরে না।

হৃদয়ের শাখা ধরে নাড়া দিয়ে গেছে
ঝুরঝুর ঝরে গেছে কামনার ফুল।

মালা গেথে কবে থেকে নিয়ে বসে আছি
আবার কখনও যদি করে সেই ভুল
ভুলেও কভু তো সে ভুল করে না।।

যেতে যেতে গানখানি পিছে ফেলে গেছে
ছমছম নুপূরের সকরুণ সুর।

শিকলে বাধিতে তারে চেয়েছিনু বুঝি
শিকল চরণে তার হয়েছে নুপূর
ধরার বাধনে সে তো ধরা পড়ে না।।

ছায়াছবি

মনে পড়ে সেই সব দিন

মনে পড়ে সেই সব দিন
সেই সব ঝরে যাওয়া স্বপ্ন রঙ্গিন
সেই সব ঋতু জুড়ে
ফাগুনের ই দিন
মনে পড়ে সেই সব দিন , মনে পড়ে সেই সব দিন

ভালোবাসা কি যে জাদু
কিযে মধু আছে তার
পাত্রে ভরা
সকলই নতুন লাগে
নতুন এই ধরা….

মধুর কি যে সে ব্যথা
না বলা কত সে কথা
চোখে চোখে চেয়ে শুধু
কেটে যাওয়া দিন

মনে পড়ে সেই সব দিন
মনে পড়ে সেই সব দিন …..

**************************************

ছায়াছবি

কেন দূরে থাক

কেন দূরে থাক
শুধু আড়াল রাখ
কে তুমি কে তুমি আমায় ডাক?
কেন দূরে থাক?

মনে হয় তবু বারে বারে
এই বুঝি এলে মোর দ্বারে
সে মধুর স্বপ্ন ভেঙ্গো না কো

ভাবে মাধুরী সুরভী তার বিলায়ে
যাবে মধুপের সুরে সুর মিলায়ে

তোমারি ধ্যায়ানে ক্ষণে ক্ষণে
কত কথা জাগে মোর মনে
চোখে মোর ফাগুনের ছবিটি আঁকো।

আধুনিক

খুব জানতে ইচ্ছে করে

খুব জানতে ইচ্ছে করে
খুব জানতে ইচ্ছে করে
তুমি কি সেই আগের মতই আছ
নাকি অনেকখানি বদলে গেছ।

এখনো কি প্রথম সকাল হলে
স্নানটি সেরে পূজার ফুল তুলে
পূজার ছলে আমারই কথা ভাব বসে ঠাকুর ঘরে
জানতে ইচ্ছে করে।

এখনো কি সন্ধ্যেবেলা আমার বাড়ি ফেরার সময় পেরিয়ে গেলে
অনেক অভিমানে চোখ দুটো কি জলে ভরে?

এখনো কি রাত নিঝুম হলে
শরৎ কাহিনী পাশে খোলা পড়ে থাকে
আকুল পিয়াসে আমারই তিয়াষে অন্তর কেঁদে মরে
খুব জানতে ইচ্ছে করে।

ছায়াছবি

তোমার বাড়ির সামনে দিয়ে আমার

তোমার বাড়ির সামনে দিয়ে
আমার মরন যাত্রা যেদিন যাবে
মরন যাত্রা যেদিন যাবে

তুমি বারান্দাতে দাঁড়িয়ে থেকো
শেষ দেখাটা দেখতে পাবে
মরন যাত্রা যেদিন যাবে …

আমায় দেখতে তোমায়
দেয়নি যারা
জানবে না যে কেউ তো তারা

আমি পাথর চখের দ্রিস্টি দিয়ে
দেখব তোমায় বিভোর ভাবে
মরন যাত্রা যেদিন যাবে

তুমি ফুল ছুড়না উপর থেকে
একটু ফেলো দীর্ঘ নিঃশ্বাস
আমার শিওরে জলা ধুপের ধোয়ায়
অটাই হবে সুখের বাতাস
তুমি ফুল ছুড়না উপর থেকে…………

যদি নতুন কোন জন্ম থাকে
পাবো দুজন দুজনাকে
সেদিন নতুন হয়ে আসব কাছে
তখন তোমায় কে আটকাবে

মরন যাত্রা যেদিন যাবে , মরন যাত্রা যেদিন যাবে

তোমার বাড়ির সামনে দিয়ে
আমার মরন যাত্রা যেদিন যাবে
মরন যাত্রা যেদিন যাবে…………………..

***********************************************************

ছায়াছবি

আমার আছে জল

আমার আছে জল , আমার আছে জল

সেই জলে যেনো পদ্ধ পুকুর
মেঘলা আকাশে মধ্য দুপুর
অচেনা এক বন বাশি সুর
বিস্বাদে ঘুমোয়

আমার আছে জল, আমার আছে জল

আমার একা সেই কালো দিঘি
একা আমি জলে নামি
আর কেউ নেই তো কাছে ও দূরে
অন্য ভুবনে থাকো তুমি

আমার একার সেই দিঘিতে ফোটাই নীলকমল

আমার আছে জল, আমার আছে জল

ঝুম বরষা ঘন কালো মেঘে
উল্লাসে নাচি একা আমি
কেউ নেই পাশে মেঘে বৃষ্টিতে
ভিন গ্রহ বাসি আজ তুমি

আমার একার জলত সবই শুধু অস্রুজল

আমার আছে জল , আমার আছে জল

রবীন্দ্র সংগীত

বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল

বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান,
আমি দিতে এসেছি শ্রাবণের গান।।

মেঘের ছায়ায় অন্ধকারে রেখেছি ঢেকে তারে
এই যে আমার সুরের ক্ষেতের প্রথম সোনার ধান।।

আজ এনে দিলে, হয়তো দিবে না কাল
রিক্ত হবে যে তোমার ফুলের ডাল।

এ গান আমার শ্রাবণে শ্রাবণে
তব বিস্মৃতিস্রোতের প্লাবনে
ফিরিয়া ফিরিয়া আসিবে তরণী বহি তব সম্মান।।

ছায়াছবি

খড়কুটার এক বাসা বাঁধলাম

খড়কুটার এক বাসা বাঁধলাম
বাবুই পাখির মত
এই হ্রদয়ের ভালোবাসা দিলাম আছে যত

একটা ময়না পাখি সেই বাসায়
পুশি কত ভালোবাসায়
তারে চোখে চোখে রাখি

উইরা যেনো না যায় আমার পোশা ময়না পাখি ……

ফাক পাইলে সে ময়না পাখি
যদি গো পালায় …….
সকাল বিকাল তাই পাখিরে
পুশি দুধ কলায়

পাখির সনে আমার সনে
ভাব হয়েছে মনে মনে (২ বার)
তবু ভয়ে থাকি ………..

উইরা যেনো না যায় আমার পোশা ময়না পাখি ……
পাখি চোখে চোখে রাখি

খড়কুটার এক বাসা বাঁধলাম
বাবুই পাখির মত
এই হ্রদয়ের ভালোবাসা দিলাম আছে যত ও ।

কোন ফাকে পালাইইয়া গেলো
পাইলাম নারে টের
পাখিটা হইলো না আপন
কপালের ই ই ফের

ভাবের বুঝি অভাব ছিলো
তাই এমন প্রতিশোধ নিলো
কান্দাইলো দুই আঁখি

উইরা গেছে খাচা ছেড়ে
আমার পোষা পাখি
আমি দুঃখ কোথায় রাখি

খড়কুটার এক বাসা বাঁধলাম
বাবুই পাখির মত
এই হ্রদয়ের ভালোবাসা দিলাম আছে যত

একটা ময়না পাখি সেই বাসায়
পুশি কত ভালোবাসায়
তারে চোখে চোখে রাখি

আমি দুঃখ কোথায় রাখি
উইরা গেছে খাচা ছেড়ে
আমার পোষা পাখি

************************************************

ছায়াছবি

আমার গায়ে যত দুঃখ সয়

আমার গায়ে যত দুঃখ সয়
বন্ধুয়ারে করো তুমার মনে যাহা লয়
বন্ধুয়ারে করো তুমার মনে যাহা লয় …….

নিঠুর বন্ধুরে এ এ
বলেছিলে আমার হবে
মন দিয়াছি এই ভেবে
সাক্ষি কেউ ছিল না সে সময়
ও হো বন্ধুরে এ এ …………

সাক্ষি শুধু চন্দ্র তারা
একদিন তুমি পড়বে ধরা রে এ এ বন্ধু
ত্রিভুবনের বিচার যেদিন হয় রে এ বন্ধু

বন্ধুয়ারে করো তুমার মনে যাহা লয়

নিঠুর বন্ধুরে এ এ
দুঃখ দিয়া হিয়ার ভিতর
একদিন ও না লইলে খবর
এইকি তোমার প্রেমের পরিচয়
অ হো বন্ধুরে ….

মিছা মিছি আশা দিয়া
কেনো বা প্রেম শিখাইলা বন্ধু
দূরে থাকা উচিত কি আর হয় রে বন্ধু

বন্ধুয়ারে করো তুমার মনে যাহা লয়

***************************************

(আরো কিছু লাইন ছিল )
পাষাণ বন্ধুরে এ এ
বিচ্ছেদের বাজারে গিয়া
তুমার প্রেম বিক্কি দিয়া
করব না প্রেম আর যদি কেউ কয়
কোকিলের হয়েছে জানা আ আ আ
কেবল ই চোরের কারখানা রে এ বন্ধু
চোরে চোরে দেওয়ালা হয় রে ……..

বন্ধুয়ারে করো তুমার মনে যাহা লয়

ছায়াছবি

নিথুয়া পাথারে

নিথুয়া পাথারে নেমেছি বন্ধুরে
ধর বন্ধু আমার কেহ নাই
তোল বন্ধু আমার কেহ নাই।।

চিকন ধুতিখানি পড়িতে না জানি
না জানি বান্ধিতে কেশ।

অল্প বয়সে পীরিতি করিয়া
হয়ে গেল জীবনেরও শেষ।

প্রেমেরও মুরলি বাজাতে নাহি জানি
না পারি বান্ধিতে সুর।।

নিথুয়া পাথারে নেমেছি বন্ধুরে
ধর বন্ধু আমার কেহ নাই
তোল বন্ধু আমার কেহ নাই।।

ছায়াছবি

যাও পাখি বলো তারে

সোনারও পালঙ্কের ঘরে
লিখে রেখে ছিলেম দ্বারে
যাও পাখি বলো তারে
সে যেন ভোলে না মোরে
সুখে থেক, ভালো থেক
মনে রেখ এ আমারে ।।

বুকের ভেতর নোনা ব্যাথা
চোখে আমার ঝরে কথা
এপার ওপার তোলপার একা

মেঘের ওপর আকাশ ওড়ে
নদীর ওপার পাখির বাসা
মনে বন্ধু বড়ো আশা ।।

যাও পাখি যারে উড়ে
তারে কয়ো আমার হয়ে
চোখ জ্বলে যায় দেখব তারে
মন চলে যায় অদূর দূরে
যাও পাখি বলো তারে
সে যেন ভোলে না মোরে
সুখে থেক, ভালো থেক
মনে রেখ এ আমারে ।।

আধুনিক

আমায় ডেকো না

আমায় ডেকো না.. ফেরানো যাবে না
ফেরারী পাখিরা কুলায় ফেরে না ।।

বিবাগী এ মন নিয়ে.. জন্ম আমার
যায় না বাঁধা আমাকে কোন কিছুর টানের মায়ায়
আমায় ডেকো না.. ফেরানো যাবে না
ফেরারী পাখিরা কুলায় ফেরে না ।।

শেষ হোক এই খেলা.. এবারের মতন
মিনতি করি আমাকে হাসিমুখে বিদায় জানাও
আমায় ডেকো না.. ফেরানো যাবে না
ফেরারী পাখিরা কুলায় ফেরে না ।।

আধুনিক

তুমি আমার ঘুম

তুমি আমার ঘুম.. তবু তোমায় নিয়ে স্বপ্ন দেখি না
তুমি আমার সুখ.. তবু তোমায় নিয়ে ঘর বাঁধি না
তুমি আমার খোলা আকাশ.. কখনো সূর্য দেখি না
তুমি আমার দিন থেকে রাত..
আমি যে সময় জানি না……. ।।

আমি বৃষ্টি চাই.. অবিরত মেঘ
তবুও সমুদ্র ছোঁব না
মরুর আকাশে মেঘ হবো শুধু.. ছায়া হবো …।
তুমি আমার খোলা আকাশ.. কখনো সূর্য দেখি না
তুমি আমার দিন থেকে রাত..
আমি যে সময় জানি না……. ।।

ভালোবাসা জলের মতন.. দু’ হাত যেন ভরে না
প্রিয় মুখ তারার মতন..
দু’ চোখে গোনা যায় না ।।
তুমি আমার খোলা আকাশ.. কখনো সূর্য দেখি না
তুমি আমার দিন থেকে রাত..
আমি যে সময় জানি না……. ।।

তুমি আমার ঘুম.. তবু তোমায় নিয়ে স্বপ্ন দেখি না
তুমি আমার সুখ.. তবু তোমায় নিয়ে ঘর বাঁধি না
তুমি আমার খোলা আকাশ.. কখনো সূর্য দেখি না
তুমি আমার দিন থেকে রাত..
আমি যে সময় জানি না……. ।।

ছায়াছবি

আমার বুকের মধ্যেখানে

আমার বুকের মধ্যেখানে মন যেখানে হৃদয় যেখানে
সেইখানে তোমাকে আমি রেখেছি কত না যতনে।।

তোমার বুকের মধ্যখানে মন যেখানে হৃদয় যেখানে
সেইখানে আমাকে রেখো আর কোথাও যাব না জীবনে

তোমায় নিয়ে নাও ভাসিয়ে যাব তেপান্তর ।।
ভালোবাসার ঘর বানিয়ে হব দেশান্তর
তোমার কত ভালোবাসি
বোঝাব বোঝাব কেমনে।।

আমার বুকের মধ্যেখানে মন যেখানে হৃদয় যেখানে

সাগরেরই টানে যেমন নদী ছুটে যায় ।।
তেমনি করে আমার এ মন
তোমায় পেতে চায়,
তুমি আমার জীবন তরী
তুমি আমার আলো নয়নে।।

আমার বুকের মধ্যেখানে মন যেখানে হৃদয় যেখানে
সেইখানে তোমাকে আমি রেখেছি কত না যতনে।।

তোমার বুকের মধ্যখানে মন যেখানে হৃদয় যেখানে
সেইখানে আমাকে রেখো আর কোথাও যাব না জীবনে

আধুনিক

ঘুড়ি তুমি কার আকাশে উড়ো

ময়লা টি-শার্ট
ছেঁড়া জুতো
কদিন আগে এই
ছিল মনেরই মতো
দিন বদলের
টানা-পোঁড়নে
সখের ঘুড়ি নাটাই সুঁতো
ঘুড়ি তুমি কার আকাশে উড়ো
তার আকাশ কি আমার চেয়ে বড়ো

তোমার নিকট অতীত
আমার এক যুগ আগের শীত
পৃথিবী তোমার অনুকূলে থাকে
আমার বিপরীত
তোমার ছোট্ট চাওয়া
আমার বৃষ্টিতে ভিজে যাওয়া
তারপর একা ঘরে মন
জড়োসড়ো

তোমার রোদেলা শহর
আমার রংচটা রং-এর ঘর
জানালা তোমার অভিমুখে খোলা
দেয়াল নড়বড়
তোমার একটু ছোঁয়া
আমার স্বপ্নকে খুঁজে পাওয়া
তারপর ঘুমভাঙ্গা চোখ
জড়োসড়ো

—————-