ব্যান্ড

ভারসাম্য (Bharshammo)

Verse-
দর্পণে অর্পণ আপন প্রতিবিম্ব,
আছড়ে ভেঙ্গে চুরমার,ধ্বনির প্রতিফলন।
ভ্রান্ত বিশ্বাসে লক্ষ্য হাতড়ে ফেরে,
গতি থমকে যায়,স্মৃতির বিস্মরণ।
ব্যর্থতার গ্লানি বিবেক কামড়ে খায়, 
(শুধু)আমি একা জড়তায়, এগিয়ে যায় সবাই
আদৌ বদলাবে কি এমন পরিস্থিতি? 
সময় পরিভ্রমণ কারোর-ই সাধ্য নয়।
Pre-Chorus 
পায়ে আবদ্ধ শেকল,দুচোখে অস্থিরতা, 
হতাশায় ধামাচাপা আন্তঃ অগ্নিশিখা।
গরজ বড় বালাই, তবু টনক অনড়!
ঝড়ো-কাক তালকানা, রন্ধ্রে রন্ধ্রে অন্ধ আশা!
Chorus
মিশ্রণ, ভারসাম্য, যন্ত্রণা, হতাশা
অবচেতনে গভীর।
প্রস্তুতি ভিন্ন কোন উপায়,
দাড়াতে হবে পেরিয়ে বাধা।
Verse-
দর্পণে অর্পণ আপন প্রতিবিম্ব
স্বীয় সৃষ্ট কারাগারে, জীবন অসহনীয়।
হীনমন্যতায় আত্ম-প্রত্যয়ের ক্ষয়
জগত-টা সংকীর্ণ, তবে কোথায় করুণাময়।
নিয়তির পরিহাস বলতে কিছু নেই,
কৃতকর্ম যেমন হবে,ফল পাবে তেমন-ই।
উত্থান-পতন জীবনে অনন্য
প্রবল-মনোবল বিজয়ে অতি আবশ্যক।
Pre-Chorus 
বিলম্ব তবে কেনো, সময় স্তব্ধ নয়!
শুরু যদি শুরু হোক আজ এখনি।
অতীত বদলানো যে কারোর-ই সাধ্য নয়,
অনুতপ্ত সবাই, নয় সময় পথচারী।
Chorus 
মিশ্রণ, ভারসাম্য, যন্ত্রণা, হতাশা
অবচেতনে গভীর।
প্রস্তুতি ভিন্ন কোন উপায়,
দাড়াতে হবে পেরিয়ে বাধা।
Bridge-1
ভয়-সংশয় সকল গ্লানি
প্রশ্বাসের সাথে নিঃশেষ হোক
চেষ্টাতে মুছে যাক ব্যর্থতা
এই শেষ, শেষবার-তবে কেনো থমকে থাকা।
Bridge-2
যথেষ্ট হীনমন্যতা, যথেষ্ট উপহাস
সহ্যের সীমা মাত্রা ছাড়ায়
নিপাত যাক ব্যর্থতা-আ-আ-আ।
Chorus- *** 
উন্মাদ ঘোড়ার লাগাম ধরে
ব্যর্থতা পেছনে ধুলো ওড়ায়।
প্রতিজ্ঞা অবচেতনে গভীর
ধুলো থেকে আমার সৃষ্টি।

ব্যান্ড

প্রতীক্ষা

দুঃস্বপ্নের শেষ সীমানায়, চমকে ঘুম ভেঙ্গে যায়
জেগে দেখি তুমি পাশে নাই, চোখ পড়ে খোলা জানালায়
জোছনায় আলো নেই আর, হতাশার কালো আঁধার

নির্বাক রয় ধরণী, দুঃখ যেনো আমারি

এক ঝিম ধরা দিবা স্বপনে
আনাগোনা সন্দেহে
আমি একা মেতে উঠি
পুণ্যে বিকশিত
পাপের খেলায়, কারাগারের অবহেলায়
পচন ধরে মনে, শরীরে
কবে আসবে ফিরে ভালোবাসা
কবে আসবে ফিরে ভালোবাসা

জীবনের সব আশায়, হতাশার আলিঙ্গনে
ঘুণে ধরা স্বপ্নগুলো, সব যেনো এলোমেলো
স্মৃতি নিয়ে আমি একা, ভাসমান এই জীবন
তাই বুঝি বেঁচে থাকা, জানিনা শেষ কোথায়

এক গোলক ধাঁধাঁয় আটকে পড়া, অবনত হৃদয়ে
দিশেহারা ছুটি আমি, রাতের আলোকিত, নগর প্রণয়, ভালোবাসার
প্রতারণায়, পচন ধরা বিশ্বাসে, আশায়….
কবে আসবে ফিরে ভালোবাসা
কবে আসবে ফিরে ভালোবাসা

ব্যান্ড

মন মুনিয়া কান্দে রে

প্রিয়া প্রিয়ারে প্রিয়ারে প্রিয়ারে
মন মুনিয়া কান্দে রে
প্রিয়া প্রিয়ারে প্রিয়ারে প্রিয়ারে
মন মুনিয়া কান্দে রে
মনের মোহনায় মন থাকে না
মন যে থাকে তোমার বাড়ি
মনের ডাকে তুমি দাও না সারা
আমি যাতনাতে মরি .
প্রিয়া প্রিয়ারে প্রিয়ারে প্রিয়ারে
মন মুনিয়া কান্দে রে
প্রিয়া প্রিয়ারে প্রিয়ারে প্রিয়ারে
মন মুনিয়া কান্দে রে |

তোমার মনের ডালে
আমার মন থাকে বসে
দিওনা ভেঙ্গে ডাল
তোমায় দেখার দোষে
তোমায় দেখার পাগল
আমার চাতক আখিঁ
প্রিয়া সখি বন্ধু
কতো নামে ডাকি
প্রিয়া প্রিয়ারে প্রিয়ারে প্রিয়ারে
মন মুনিয়া কান্দে রে |
তোমার মনের ঘড়ের
দক্ষিন জালানার পাশে
ফুল হয়ে ফুটব
তোমায় দেখার আশে
নিঠুর হয়ে তুমি
ছিড়না ফুলের পাতা
পড়ে দেখ তুমি
নিরব চোখের কথা
প্রিয়া প্রিয়ারে প্রিয়ারে প্রিয়ারে
মন মুনিয়া কান্দে রে
প্রিয়া প্রিয়ারে প্রিয়ারে প্রিয়ারে
মন মুনিয়া কান্দে রে

মনের মোহনায় মন থাকে না
মন যে থাকে তোমার বাড়ি
মনের ডাকে তুমি দাও না সারা
আমি যাতনাতে মরি .
প্রিয়া প্রিয়ারে প্রিয়ারে প্রিয়ারে
মন মুনিয়া কান্দে রে
প্রিয়া প্রিয়ারে প্রিয়ারে প্রিয়ারে
মন মুনিয়া কান্দে রে |

ব্যান্ড

আমার অপ্সরী

আমার অপ্সরী

কোনো কোনো ভোর দেখি স্তদ্ধ আধারে
কোনো কোনো ভোর দেখি আলোয়
এক রাতে দেখি পুর্নতায় চাঁদ
ওই একই রাত ই কালো
একই আকাশ ভিন্ন রূপে
ঊষা থেকে ক্লান্তি লগ্নে
আমার অপ্সরী

তোমার দেহ কখনো হাসে নীরব ভালবাসায়
কখনো দেখি স্তদ্ধ মেঘ হয়ে যায়
কখনো নীরবে কখনো অঝোরে ঝড় বয়ে যায়
একই দেহ
ভিন্ন মোহ
আলো শেষে এক নিবিড় ছায়ায়
আমার অপ্সরী….

তুমি যেওনা বদলে
থেকো আমার আলো হয়ে
তুমি যেওনা স্মৃতিতে
থেকো আমার তুমি হয়ে

ছুয়ে আমায় কখনো তুমি আনমনে
হারিয়ে যাও অবনীল বিহনে
কখনো আলো আর কখনো আধারের মায়াতে
হারিয়ে ফেলি আমি তোমাকে
আমার অপ্সরী
এভাবে কত আর আমাকে
আড়াল করে রাখবে বল অপ্সরী?

ব্যান্ড

রাজাকার

Sorrow of the nation ( রাজাকার)

আলোর মশাল জ্বলছে এবার
হৃদয় উষ্ণ কর, উষ্ণতায় জাগবে মন
দৃষ্টি তে দেশ এখন।
চোখের ভরসায় নয়,
মনের ভেতর কি কয়?
জ্বলবে আলোর মশাল
দেখাও রক্তের তেজ।

এদেশ আমার, স্বপ্ন সবার, সবাই রাজা
শুধু তুই…
জানিস কে তুই?
তুই রাজাকার, ছিলি রাজাকার

শত স্বপ্নে নাগরিক এসেছ
দুহাত ঊর্ধে তোল, হাতে রাখব হাত
স্লোগানে গাইবো গান।
এ পথ রাজপথ নয়, এত কিসের ভয়?
ঝরবে আপন প্রান, গড়তে দেশের মান।

লাল সবুজ আমার, স্বপ্ন সবার
শুধুই একটি কালো দাগ।
আর এ দাগটাই হলো
রাজাকার….
তুই রাজাকার, ছিলি রাজাকার।

ব্যান্ড

প্রাণের অসুখ

প্রানের অসুখ

সুখ প্রাণের অসুখ
ভেংগে দিল সময়ের বুক
খিল আটকালো দিল
মন জোড়া শামুকের বিল

চোর করেছিল জোর
কেটে গেছে অসুখের ঘোর
দিন গিয়েছে রংগিন
কবে যেন হয়েছে কঠিন

“থাক জমা থাক,
ভেজা মনের শিশির ফোটা গুলো,
ঝাপ টেনে নিক বোকা গল্প টা
হোক না এবার,
সাঁঝ বাতিতে মান ভাংগানো
ঘুম চোখের শেষ অভিমান।”

আজ ভুলে গিয়ে কাজ
দু চোখে সবুজ সমাজ
থাক কথা তুলে রাখ
সময়টা রাস্তা দেখাক

কাজ ঝেড়ে ফেলে আজ
ভুলে ফেলে জীবনের ভাজ
খুব ভোর ঘুমে বিভোর
স্বপ্নেরা পায় নতুন শহর।

“থাক জমা থাক,
ভেজা মনের শিশির ফোটা গুলো,
ঝাপ টেনে নিক বোকা গল্প টা
হোক না এবার,
সাঁঝ বাতিতে মন ভাংগানো
ঘুম চোখের শেষ অভিমান।”

ব্যান্ড

সীমানার শহর

সীমানার শহর

কোনো এক সন্ধ্যের দলে,
আমার রঙ এর মাঝে তোমায় খুজে পাই।
স্বপ্ন রেখায় আকা অপ্সরীর বিদায়ে,
নতুন সীমানার শহর তুমি।

এত যাবে যাবে কেনো বল?
চাইলেই কি যাওয়া যায় বল?

জানো তো,
তোমার ঐ চোখে আমার পৃথিবী।

কেনো যে সময় হারায়!
জানিনা তবু প্রশ্ন রাখি না, কোথাও আবার দীর্ঘশ্বাসের ঘড়িতে,
স্রোতের সীমানায় খুজে পাই তোমার শরীর।

কেনো কাছে থেকেও যাবে বল?
রঙ ছেড়ে তুমি যাবে বল কোথায়?
এত যাবে যাবে কেনো বল?
চাইলেই কি যাওয়া যায় বল?

জানো তো,
তোমার ঐ চোখে আমার পৃথিবী।

ব্যান্ড

সত্যের কাছাকাছি

সত্যের কাছাকাছি

এবার চল তোমায় সত্যের মুখোমুখি করে দেখাবো
জীবন কি?
চল, চল, শুধু একবার চল।
শুধু একবার সাথে চল,
নির্ভুল কিছু সত্য দেখাবো তোমায়।

দেখবে তুমি অগণিত শিশুর ক্রন্দন
অজস্র ক্ষুধার্ত মুখ নীরবে তাকিয়
এরাও তো মানুষ, মন ও জীবন এদের ও আছে
ভেবোনা পৃথিবী তে তুমি শুধু একজন।

এখন নেবো তোমায় এক বৃদ্ধের শেষ জীবনে
যে শুন্য হয়েছিলো তোমায় পূর্ণ করতে
সে জীবন এখন কোথায়? কেমন আছে? নাকি, ও পারে
এ প্রশ্ন কি রেখেছো কখনো?

সে বৃদ্ধের উপোস স্বপ্ন আছড়ে পড়ে ভেংগেছে
তোমায় পূর্ণ করতে সে জীবন ভাসিয়েছে
তার উচ্ছাস উল্লাস, বারুদের ধোয়ায় বিলীন স্বপ্ন
তুমি দিয়েছ কি যতটা সে হারিয়েছে?

এখন বল আমায়, সত্যের কাছাকাছি এসেও আজ
তুমি কি বদলাবে না?
তাদের ভালোবাসায় ও কি জাগবে না?
কি করে বোঝাবো তোমায়?

এবার বল তুমি কি বদলাবে না?
তাদের ভালোবাসায় ও কি জাগবে না?

ব্যান্ড

রঙ

রঙ

রঙের মাঝে অচেনা তোমায় খুঁজি
খুঁজে পাই চেনা, অচেনা ছায়ার আবেশ।

তোমার মোহে মত্ত, অকারণ বিলাসিতায়
আমার স্বপ্নের ভিত্তিহীন ভিত গড়া
নিজেকে হারানোর অকারণ অভিপ্রায়ে
আজ তোমার চোখে আমার পৃথিবী।

আমার রঙ এর স্বপ্ন তোমার শরীর গড়ে
সময়ের স্পন্দনে।

তোমার মোহে মত্ত, অকারণ বিলাসিতায়
আমার স্বপ্নের ভিত্তিহীন ভিত গড়া
নিজেকে হারানোর অকারণ অভিপ্রায়ে
আজ তোমার চোখে আমার পৃথিবী।

আমার স্বচ্ছ আকাশে,
অবশেষে,
তোমার প্রতিচ্ছবি।

তোমার মোহে মত্ত, অকারণ বিলাসিতায়
আমার স্বপ্নের ভিত্তিহীন ভিত গড়া
নিজেকে হারানোর অকারণ অভিপ্রায়ে
আজ তোমার চোখে আমার পৃথিবী।

ব্যান্ড

স্বপ্ন রেখা

স্বপ্ন রেখা

যাবে যদি যাও চলে যাও মুছে,
আমার কবিতায়।
তবে জেনে যাও আমার শব্দের লীন চেতনায়,
আজ থেকে নও তুমি অন্য কেও
আমার শব্দের নতুন স্বপ্ন রেখা

ও পাশ থেকে সূর্যোদয় এ,
রাতের মূর্ত আধার ভাংগে।
কালোর ডাকে আলোর অস্তিত্বে,
তমশা ছেড়ে নগ্ন হয় পৃথিবী।

যাবে যদি যাও দেখবো আমি,
তোমার বিদায়।
তবে জেনে যাও আমার দুহাতের নতুন অস্তিত্বে,
আজ আর তো নেই তুমি,
অন্য কেও আমার শব্দের নতুন স্বপ্নরেখা।

ব্যান্ড

নীল

নীল
মনের ভেতর জমছে ধুলো বালি,
ডুবে ডুবে যাচ্ছে দিন, দূর আধার।
হাঁপ ছেড়ে বাচতে চায় কোনো হৃদয়,
ভুলে ভালে উল্টিয়ে ছেড়া মলাঠ।
টীক টীক ষাট গুনে জাপটে ধরা আলো,
ডানা ভেংগে বিলীন হয়ে যায়।
ঝুপ ঝুপ জলে ভেজা তোমার চুলে,
রোদ কেন নত হয়ে যায়?
রং বদলায়
ছুটে যেতে চায়
কেন হেরে যায় ?

একহাত মুঠো করে আনা গোলাপ,
ভাজে ভাজে রং বেচে যায়।
গুনে গুনে শতবার ভালবাসি লেখা পাতাটা,
উড়ে ভেসে যায়
মেঘ হয়ে যায়
ছুটে যেতে চায়
কেনো হেরে যায়?

অভিমানি জানালাটা
বাতাস টেনে নেয় বুকে
ভেজা ভেজা স্বরে বলে
নীল তোমাকে ভালবাসি এখনো
খুব সেই পুরোনো
শীতে শীত শীত জমানো জোছনায়।

বহু দিনের ঘামে মাখা
নীল কবিতাটা হলুদ ছুঁয়ে
ছুটে গিয়ে সবুজ হয়ে
হাপিয়ে উঠে আবার
রং বদলায়
উড়ে ভেসে যায়
মেঘ হয়ে যায়
কেন ঝরে যায়?

ব্যান্ড

অপেক্ষায়

অপেক্ষায়

তুমি তো বদলে গেছ! আমরা বদলে দিয়েছি!
তুমি তো হেরে গেছ! আমরা হারিয়ে দিয়েছি!

যাবেই যদি এ পথটাতে, বেধেছিলে কেনো আমায়?
কেনো তবে এতটা ক্ষণ,
কোন মরীচিকার আশায় অপেক্ষায়?

বেধেছিলে যে রঙিন মায়ায়
ডুবেছিলে যে কালো স্রোতে
পাওনি তো কোনো জীবনের আলো
প্রাণের পুঁজি শুধুই ক্ষয়েছে।

যাবেই যদি এ পথটাতে, বেধেছিলে কেনো আমায়?
কেনো তবে এতটা ক্ষণ,
কোন মরীচিকার আশায় অপেক্ষায়?

ভয় কি বন্ধু, সত্য পিয়াসে?
মুক্তি তো নেই, বেদনার গ্লাসে
কি ভয়াবহ, কাপুরুষ তুমি।
নাড়িয়ে দেখ বিবেক টাকে।

তোমার পথের প্রহর গুনে
চেনা মুখ গুলো শুকিয়ে গেছে
তোমার জগত এখনো আছে শুধু তোমার
অপেক্ষায়।

ব্যান্ড

টি-শার্ট

ঘরের কোনে টি-শার্ট ঝুলছে মাস মাস,
রাতে ভাবি ভোরে করবই ড্রাই ওয়াশ।
আজ হবে, কাল হবে নয়তো পরশু,
ধিরে ফিকে হয় এর রংটা পাংশু।

ঘরের চারকোনে মাকড়সা বুনছে জাল,
দিনের আকাশ বদলালেই রাতে সব খেয়াল।
মুছতে হবে ভাবতে ক্যালেন্ডার ও বদলে যায়,
এক ভোরে দেখি ঐ ছাদ আর ছাদ নাই।

তোমরা যারা এই জাতির কর্ণধার হবে,
একদিন হারাবে ঘর দুয়ার,
রবে মাথার উপর শুধু ওই নীল আকাশ,
একদিন হারাবেও ওই নীল আকাশ।

চোখের সামনে অন্যায়, প্রতিবাদ ঘরের কোনে,
দুনিয়াটা উল্টাও ফেইসবুক স্টাটাসে।
ঘরের বাইরে ঠিকই স্বার্থের বাতি জ্বেলে,
চুড়ি পড়ে দেখি নোংরামির মজা লুটে।
এভাবে আর কত রাত দেশ টা যে,
স্বার্থের বিছানায় নিজেকে বিকোবে?

তোমরা যে আর কবে জাগবে!
জাগতে জাগতে নাকি এই দেশ টা হারাবে
আমরা কি একাই লড়ে যাবো?
মাকড়শারজালে কি দেশ টা সাজাবো?
নোংরা টি-শার্ট সব ডাস্টবিনে ফেলে দাও,
নোংরামি ছেড়ে এই দেশটার মান বাচাও।

ব্যান্ড

আমি তুমি ভালোবাসি

আমি জানি
তোমার অভিমানের ঐ খাতায় পৃষ্ঠা কতটা
আমি জানি জানি জানি আমি জানি
তুমি অভিমানি মেঘ কতখানি
আমি জানি জানি জানি আমি জানি
তুমি আমি আমি তুমি তোমাকে
ভালবাসি, ভালবাসি

আমি জানি
ঐ দুষ্ট মিষ্টি মুখটা ফুলিয়ে
চলে যাওয়ার সীমারেখাটা
আমি জানি জানি আমি আমি জানি
তুমি দূরে যেতে পার কতখানি
আমি জানি জানি জানি এ ও জানি
তুমি শান্ত ক্লান্ত হয়ে বলবে
ভালবাসি, ভালবাসি

আমি তুমি তুমি আমি জানি
এই আমি তুমি বড় অভিমানি
এই অভিমান খুনসুটি মিলে
আমি + তুমি হয়ে যাই
ভালবাসি, ভালবাসি

ব্যান্ড

কেন এমন হয়

বল , কেন এমন হয় – না পাওয়ার অর্থটাকে ভালোবাসা কয়।
বল , কেন এমন হয়- এক চিমটি সুখ পাওয়াটা ভালোবাসা নয়।
বল , কেন এমন হয়- বল কেন এমন হয়।

আধার ঘরে একলা আমি , স্বপ্ন ছেড়ে দুঃস্বপ্নে নামি
স্মৃতি গুলি সব পিছে পড়ে রয়।
বল , কেন এমন হয় – না পাওয়ার অর্থটাকে ভালোবাসা কয়।
বল , কেন এমন হয়- বল কেন এমন হয়।

হৃদয় ছিঁড়ে গেলে তুমি , সবার মাঝেও আজ একলা আমি,
পৃথিবীটা বড় শূন্য মনে হয়।
হৃদয় ছিঁড়ে গেলে তুমি , সবার মাঝেও আজ একলা আমি,
পৃথিবীটা বড় শূন্য মনে হয়।
বল , কেন এমন হয় – না পাওয়ার অর্থটাকে ভালোবাসা কয়।

বল , কেন এমন হয় – না পাওয়ার অর্থটাকে ভালোবাসা কয়।
বল , কেন এমন হয়- এক চিমটি সুখ পাওয়াটা ভালোবাসা নয়।
বল , কেন এমন হয়- বল কেন এমন হয়।