বিবিধ

মোদের গরব মোদের আশা আ মরি বাংলা ভাষা

আ মরি বাংলা ভাষা
মোদের গরব, মোদের আশা, আ মরি বাংলা ভাষা ।।
মাগো তোমার কোলে, তোমার বোলে, কতই শান্তি ভালবাসা ।।
আ মরি বাংলা ভাষা!
মোদের গরব, মোদের আশা, আ মরি বাংলা ভাষা

কি যাদু বাংলা গানে! গান গেয়ে দাঁড় মাঝি টানে ।।
গেয়ে গান নাচে বাউল ।। গান গেয়ে ধান কাটে চাষা ||
আ মরি বাংলা ভাষা!
মোদের গরব, মোদের আশা, আ মরি বাংলা ভাষা!

ঐ ভাষাতেই নিতাই গোরা, আনল দেশে ভক্তি-ধারা।।
আছে কৈ এমন ভাষা ।। এমন দুঃখ-শ্রান্তি-নাশা ||
আ মরি বাংলা ভাষা!
মোদের গরব, মোদের আশা, আ মরি বাংলা ভাষা!

বিদ্যাপতি, চণ্ডী, গোবিন, হেম, মধু, বঙ্কিম, নবীন :
ঐ ফুলেরই মধুর রসে ।। বাঁধলো সুখে মধুর বাসা ||
আ মরি বাংলা ভাষা!
মোদের গরব, মোদের আশা, আ মরি বাংলা ভাষা!

বাজিয়ে রবি তোমার বীণে, আনলো মালা জগত্ জিনে ।।
তোমার চরণ-তীর্থে আজি ।। জগত্ করে যাওয়া-আসা ||
আ মরি বাংলা ভাষা!
মোদের গরব, মোদের আশা, আ মরি বাংলা ভাষা!

ঐ ভাষাতেই প্রথম বোলে, ডাকনু মায়ে ‘মা, মা’ ব’লে ।।
ঐ ভাষাতেই বলবো হরি, আমি ঐ ভাষাতেই বলবো হরি
সাঙ্গ হ’লে কাঁদা হাসা ||
আ মরি বাংলা ভাষা!
মোদের গরব, মোদের আশা, আ মরি বাংলা ভাষা!

বিবিধ

তোমরা কইও গো বুঝাইয়া

তোমরা কইও গো বুঝাইয়া
প্রাণ বন্ধু মোর আসবে কী গো
আমি যদি যাই মরিয়া !

জৈষ্ঠ গেলো আষাঢ় গেলো শ্রাবণ ফুরাইলো
কারে দিবো সোনার যৌবন
না আসলে ফিরিয়া
হায়গো-প্রাণ বন্ধু মোর আসবে কী গো
আমি যদি যাই মরিয়া !

তুমরা তো বুঝাও গো সখি
মনে তো বুঝে না
দেইখা আইলাম বন্ধুর বাসর
ফুলে ফুলে ভরা
হায়গো-প্রাণ বন্ধু মোর আসবে কী গো
আমি যদি যাই মরিয়া !

কালো রুপের জ্বালা সখি
বুঝিবে কেমনে ।।
যে দেইখাছে সে মইরাছে
জানে আমার মনে
হায়গো-………
প্রাণ বন্ধু মোর আসবে কী গো
আমি যদি যাই মরিয়া !

তুমরা যদি দেখতে সখি
আমারই নয়নে ।।
কুলো মান ছাড়িয়া যাইত
পাগলিনী হইয়া

তোমরা কইও গো বুঝাইয়া
প্রাণ বন্ধু মোর আসবে কী গো
আমি যদি যাই মরিয়া !

সুত্রঃ-ক্ষুদে গানরাজ প্রতিযোগিতায় প্রথম শোনা গান, আসল শিল্পীর নাম জানিনা।

বিবিধ

আইজ পাশা খেলবো রে শ্যাম

ও শ্যাম রে তোমার সনে
একেলা পাইয়াছি রে শ্যাম
এই নিঠুর বনে
আইজ পাশা খেলবো রে শ্যাম

একেলা পাইয়াছি হেতা পলাইয়া যাবে কোথায় ।।
চৌদিকে ঘিরিয়ারে রাখবো ।।
সব সখি সনে
আইজ পাশা খেলবো রে শ্যাম

আতর গোলাপ চন্দন মারো বন্ধের গায় ।।
ছিটাইয়া দাও ছোয়া চন্দন ।।
ঐ রাঙ্গা চরণে
আইজ পাশা খেলবো রে শ্যাম

দীনহীন আর যাবে কোথায়
বন্ধের চরণ বিহনে ।।
রাঙ্গা চরণ মাথায় নিয়া দীন হীন কান্দে ।।
আইজ পাশা খেলবো রে শ্যাম

ও শ্যাম রে তোমার সনে
একেলা পাইয়াছি রে শ্যাম
এই নিঠুর বনে
আইজ পাশা খেলবো রে শ্যাম

বিবিধ

আমি বাংলাদেশের আজম খান

আমি বাংলাদেশের আজম খান
বাংলাতে গাই পপ গান
জারি সারি ভাটিয়ালী
এক মায়ের সন্তান ।।
আমি আজম খান

আমি বাংলাদেশের আজম খান
বাংলাতে গাই পপ গান
জারি সারি ভাটিয়ালী
এক মায়ের সন্তান ।।
আমি আজম খান

সালেকা মালেকা ওরা হইছে এখন বুড়ি
গুলশানেতে করছে বাড়ি টাকা কাড়ি কাড়ি ।।
ফুলবানু’র ও বাড়ছে এখন কদর ও সম্মান
জাফরানি জর্দা দিয়া খায় সাচি পান
আমি আজম এখনো গাই বাংলাতে পপ গান
আমি আজম খান

আলাল দুলাল আগের মত নাই তো আর পাজি
ওদের বাবা মাল কামাইতে হইছে এখন রাজি ।।

আলাল দুলাল ব্যবসা করে সিংগাপুর গিয়া
হাজি চান গাড়ি হাকান সাইকেল ছাড়িয়া
আমি আজম এখনো গাই বাংলাতে পপ গান
আমি আজম খান

আমি বাংলাদেশের আজম খান
বাংলাতে গাই পপ গান
জারি সারি ভাটিয়ালী
এক মায়ের সন্তান ।।
আমি আজম খান

বিবিধ

মধুর আমার মায়ের হাসি

মধুর আমার মায়ের হাসি
চাঁদের মুখে ঝরে
মাকে মনে পড়ে আমার
মাকে মনে পড়ে ।।

তার মায়ায় ভরা সজল বীথি
সেকি কভু হারায়
সে যে জড়িয়ে আছে
ছড়িয়ে আচ্ছে
সন্ধ্যা রাতের তারায়
সেই যে আমার মা ।।
বিশ্ব ভূবন মাঝে তাহার নেই কো তুলনা

মধুর আমার মায়ের হাসি
চাঁদের মুখে ঝরে
মাকে মনে পড়ে আমার
মাকে মনে পড়ে ।।

তার ললাটের সিঁদুর দিয়ে
ভোরের রবি উঠে
আলতা পড়া পায়ের ছোয়ায়
রক্ত কমল ফোটে ।।

প্রদীপ হয়ে মোর শিয়রে
কে জেগে রয় দুখের ঘরে
সেই যে আমার মা ।।
বিশ্ব ভূবন মাঝে তাহার নেই কো তুলনা

মধুর আমার মায়ের হাসি
চাঁদের মুখে ঝরে
মাকে মনে পড়ে আমার
মাকে মনে পড়ে ।।

বিবিধ

গণিত অলেম্পিয়াডের গান

মন মেলে শোন্, শুনতে পাবি বিজয়ের আহবান
গণিতের ধ্বনিতেই বাজে ঐ মুক্তির জয়গান
গণিতের প্রতি আছে যতো ভীতি আজ হবে সব দূর,
আজ লক্ষ প্রাণের ঐকতানে বাজবে একই সুর—

আয় আয় আয় কে স্বপ্ন দেখবি আয়
আয় আয় আয় গণিতের আঙ্গিনায়
আয় আয় আয় কে দেশটা গড়বি আয়
আয় আয় আয় গণিতের আঙ্গিনায়

একটি মানুষ দেখলে ম্বপ্ন, স্বপ্ন তারে কয়
দুজন দেখলে একই স্বপ্ন সেও তো স্বপ্ন রয়
যদি লক্ষ কোটি প্রাণ দোলে একই স্বপ্ন মূর্ছনায়
সে আর তখন থাকেনা স্বপন, সত্যি হয়ে যায়।
আয় গণিতের পথ বেয়ে, আয় নবীনেরা সব ধেয়ে
দ্যাখ, আশা নিয়ে এক জাতি আছে আজ তোদেরই পানে চেয়ে
এই দেশ জাগাবি গণিতের জীয়ন কাঠির ছোঁয়ায়

আয় আয় আয় কে স্বপ্ন দেখবি আয়
আয় আয় আয় গণিতের আঙ্গিনায়
আয় আয় আয় কে দেশটা গড়বি আয়
আয় আয় আয় গণিতের আঙ্গিনায়

কত না ধাঁধা গণিতের বাধা যেতে হবে পেরিয়ে
সংখ্যার বৈচিত্রের মাঝে যাবি নাকি হারিয়ে?
যদি দেশপ্রেম বুকে, গণিতে সুখে করিস বিচরণ
একদিন সত্যিই মিলে যাবে এ দেশের সমীকরণ
আর নেই কোন সংশয়, আজ গণিত করবি জয়
গণিতের ভাষাতে রাখবি বিশ্বে স্বদেশের পরিচয়
আমরাও পারি যে হতে সেরা বিশ্ব দেখবে তা-ই…

আয় আয় আয় কে স্বপ্ন দেখবি আয়
আয় আয় আয় গণিতের আঙ্গিনায়
আয় আয় আয় কে দেশটা গড়বি আয়
আয় আয় আয় গণিতের আঙ্গিনায়।

বিবিধ

লাল পাহাড়ের দেশে যা

লাল পাহাড়ের দেশে যা
রাঙ্গামটির দেশে যা
ইত্থাক তুকে মানাইছে না রে
ইক্কেবারে মানাইছে না রে

লাল পাহাড়ি দেশে যাবি
হাঁড়ি আর মাদল পাবি
মেয়ে মরদের আদর পাবি রে
ও নাগর… ও নাগর…
ইক্কেবারে মানাইছে না রে

লাল পাহাড়ি দেশে যা
রাঙ্গামটির দেশে যা
ইত্থাক তুকে মানাইছে না রে
ইক্কেবারে মানাইছে না রে

নদীর ধারে শিমুলের ফুল
নানা পাখির বাসা রে নানা পাখির বাসা
সকালে ফুটিবে ফুল মনে ছিল আশা রে
এমন ছিল আশা

তুই ভালোবেসে গেলি চলে
কেমন বাপের ব্যাটা রে তুই কেমন ব্যাটা?
লাল পাহাড়ি দেশে যা
রাঙ্গামটির দেশে যা
ইত্থাক তুকে মানাইছে না রে
ইক্কেবারে মানাইছে না রে

ভাদর মাসে ভাদু পূজা
ভাদু গানের ঘটা
ঐ কালো মেয়েটার মন মজেছে
গলায় দিব মালা রে
তার গলায় দিব মালা

তুই মরবি তো মরে যা
ইকেবারে মরে যা মরবি তো মরে যা
ইকেবারে মরে যা
ইত্থাক তুকে মানাইছে না রে
ও নাগর… ও নাগর…
ইক্কেবারে মানাইছে না রে

বিবিধ

ময়না ছলাৎ ছলাৎ চলে রে

ময়না ছলাৎ ছলাৎ চলে রে
পিছন পানে চায়না রে
মন ধুকপুক ধুকপুক করে রে
তোর লাগি উতলা রে
শাল পিয়ালের বন থিক্যা
ওই জংলা নদীর পাড়েতে
তোর সঙ্গ লই ঘুরঘুর করুম
এই বাসনা প্রানে
ময়না ছলাৎ ছলাৎ।।

দূর-দূর তোর এই মনটা লইয়া
যাবো বাগানটায়
লাল হলুদ ফুল দিয়া মুই বাঁন্ধিবো খোপায়।

সাধের পিরতিমা কইর‌্যা রাখুম চোখের তারাটায়
রানী হইয়া রইবি মোর এই হু-হু-হু-হু পরানটায়।।

মন চায় তোরে রাখুম ধরে জাপট দিয়া, হায়,
চাঁন্দ তারা তোর লাগি আনুম হুকুম টায়।

সাধের প্রতিমা কইর‌্যা রাখুম চোখের তারাটায়
রানী হইয়া রইবি মোর এই হু-হু-হু-হু পরানটায়।।