পপ সঙ্গীত

সেই মেয়েটি

সেই মেয়েটি আমাকে ভালবাসে
কিনা আমি জানি না
যার মেঘ কালো চুল হো… ও… ও…
হরিনী চোখ হো… ও… ও…
কন্ঠটি গানের বিনাস ও… হো… হ…।।

তার হাসি যেন শিশিরের কনা
তার দৃষ্টি যেন মায়াবী ছলনা।

তাকে না দেখেও মনে হয়
সে আমার অনেক দিনের চেনা
হো… ও… ও…।।

তার চরণ যেন নূপুরের দোলা
তার হৃদয় যেন বাতায়ন খোলা।

তাকে না পেয়েও মনে হয়
সে আমার ভালয়াসা দিয়ে কেনা
হো… ও… ও…।।

পপ সঙ্গীত

এতো সুন্দর দুনিয়ায় কিছুই রবে না গো

হে আল্লাহ, হে আল্লাহ রে
এতো সুন্দর দুনিয়ায়
কিছুই রবে না গো
হে আল্লাহ হে আল্লাহ রে।

টাকা ঘর বাড়ি গাড়ি।
টাকা বল ধন বল
বাড়ি বল গাড়ি বল
সব যাবে হাওয়ায় উড়ে
ইস্রাফিলের শিঙ্গা শুনে
হে আল্লাহ হে আল্লাহ রে।।

প্রেম প্রীতি ভালবাসা।
প্রেম প্রীতি ভালবাসা
এ যে শুধু মিছে আশা
দুদিনের খেলাঘর
সব যাবে ভেঙ্গে চুরে
হে আল্লাহ হে আল্লাহ রে।।

পপ সঙ্গীত

কলিজার চাঁন

আমার কলিজার চাঁন
পরাণের জান লো
তোমারে না দেখলে আমার
দিলে লাগে টান।।

ভরা চাঁন্দে নয়ন কান্দে
তোমার কথা ভেবে
প্রাণ বন্ধুয়া মন মন্দিরে
আসবে তুমি কবে ।

প্রেমের দায়ে ঘর ছাড়িলাম
তোমায় পাইবার আশে
এই ক্ষ্যাপারো সুখ হইলোনা
তোমায় ভালোবেসে ।

পপ সঙ্গীত

কে আঁকে অন্য ছবি

মাঝে মাঝে তোমায়, ভেবে এলোমেলো লাগে সবি।
মাঝে মাঝে তোমার চোখে, কে আঁকে অন্য ছবি।
কিছুতে তোমার মনটা আমি বুঝতে পারিনা।
এত চেনা তবু যেনো লাগে অচেনা।

মাঝে মাঝে আকাশে চেয়ে, উদাসী হয়ে থাকো।
বুঝিনা যে তখন তুমি, কার কথা যে ভাবো।
কিছুতে তোমার…..

মাঝে মাঝে কথার ফাঁকে, হঠাৎ তুমি থেমে যাও।
বুঝিনাত যে কথাটি, আড়াল করে যে যাও।
কিছুতে তোমার…..

পপ সঙ্গীত

মন ভাবে তারে

মন ভাবে তারে এই মেঘলা দিনে,
শীতল কুয়াশাতে তার স্পর্শে,
তার রুনুঝুন নুপুরের সাজে
বাতাসে যেন মৃদু সুবাসে…

নিটল পায়ে রিনিক . ঝিনিক ..
পায়েলখানি বাজে,
মাদল বাজে সেই সঙ্গেতে…
শ্যামা মেয়ে নাচে…

চাঁদের অধোর যেন তোমার হাসির মাঝে,
সোনালী আবেশে তবে সাগর হারে,
হৃদয়ের মাঝে কবে বেঁধে ছিলে বাঁধন,
ভালবাসা তবে কেন মনের অগচোরে….

তুমি কি আমার বন্ধু, আজ কেন বোঝনি
তুমি কি আমার বন্ধু, কেন ভালবাসনি….

পপ সঙ্গীত

বাসকাব্য

ছেলেটার নাম আকাশ-টাকাশ হবে
আর মেয়েটার বর্ষা-টর্ষা কিছু,
সেই ছেলেটার দৃষ্টি অপলকে
বাধ্য হয়েই মেয়ের মাথা নিচু!
তারপরেও হঠাৎ ফাঁকে-ফাঁকে
আড়চোখে সে তাকাচ্ছিল বটে,
চোখে-চোখে হয়নি যে- তা, না তো!
বাসস্টপে তা অহরহই ঘটে!
ইতিহাসের পাতাতে তাই – ‘ওরা’
স্থান পাবে না বিপ্লবীদের মতো!
ঠিক তখনি বাস দাঁড়ালো দু’টো
পাশাপাশি সিটও খালি কত!
আহা! অমন সিট যদি পায় তারা?
তেমন ভেবেই মে’ উঠে যায় বাসে
আজ সে যাবে উত্তরাতে, ঘরে
ওদিক ছেলে ভার্সিটিতে, ক্লাসে!
হায়! ছেলে তাই ভিন্ন বাসে ওঠে
তার পাশেরও সিটটা থাকে ফাঁকা,
বাস চলতেই মে’টা ঘুরে তাকায়
তার দু’চোখে “থামতে বলো” আঁকা!
কেউ থামেনি! কে থামাবে কাকে?
সবারই যে ভীষণ রকম তাড়া!
তাই ইতিহাস লিখলো না নাম দুটো
তাড়ার কাছে হার মেনেছে যারা!
তবু আজও “মন খারাপ”-এর মানে
সবার কাছে – “বৃষ্টি” হয়েই র’বে…
ছেলেটার নাম আকাশ-টাকাশ ছিল
আর মেয়েটার বর্ষা-টর্ষা হবে!

পপ সঙ্গীত

যদি ভাবো

যদি ভাবো, ভাবছি তোমায়
ঠোঁটের মাঝে আঙ্গুল রেখেছি
হাল্কা-হাওয়া, সন্ধ্যে বেলায়
জেনো শুধু আমি এসেছি,

উড়তে থাকা কাগজের কোণায়
সুতোর টানে কত গান বেঁধেছি
ঘুরতে থাকা এ হাওয়া শোনায়
তোমার যে গান আমি শুনেছি

রাতের আলোয় সাগর পাড়ে
তোমার স্মৃতি আঁকড়ে থেকেছি।

বন্ধ দরজার ও পাশে প্রদীপ জ্বেলে
কোন সুদুরের স্বপ্নে বিভোর হয়েছি
রোদ পড়ে রয় আমার চাদর জুড়ে
অন্ধ আবেগে তোমাতেই স্বর্গ দেখেছি

উড়তে থাকা কাগজের কোণায়
সুতোর টানে কত গান বেঁধেছি
ঘুরতে থাকা এ হাওয়া শোনায়
তোমার যে গান আমি শুনেছি

রাতের আলোয় সাগর পাড়ে
পাথরের মত আমি ক্ষয়েছি……

পপ সঙ্গীত

প্রাণনাথ

প্রাণনাথ আসবে বলে
কপাটখানা দাও না খুলে।

জ্বলে যায়রে পুড়ে যায়রে
আমার হৃদ কমলা প্রাণ ভ্রমরা
মধু খাওরে মধু খাওরে
কলা খাওরে ডাঙ্গর হওরে
আমার হৃদ কমলা প্রাণ ভ্রমরা
মধু খাওরে…।।

তোমার আমার ঘরে
ইলেক্ট্রিকের বাত্তি জ্বলে।

অফ কইরা টিপ দিলে
চমকিয়া উঠে পিড়িতি
করবো না লো জান পিড়িতি
করবো না লো জান।।

তোমার আমার সনে
টেলিফোনে কথা বনে।
রঙ নাম্বার হইলে পরে
কইলজাটা ফাটে পিড়িতি
করবো না লো জান পিড়িতি
করবো না লো জান।।

প্রমিলা বাত্তি জ্বলে
পোলাপানে নাচে তালে।
হটাৎ কারেন্ট চইলা গেলে
থমকিয়া উঠে পিড়িতি
করবো না লো জান পিড়িতি
করবো না লো জান।।

পপ সঙ্গীত

নেই কোন অভিযোগ

নেই কোন অভিযোগ
জমে থাকা দুঃখ তিলে তিলে
হয়েছে পাহাড় সমান।।
নেই তবুও অভিমান

হৃদয়ের সুর ফেলে দিয়ে
সাজিয়েছিলাম কাছে টেনে।

সব কিছু ভুলে হারালে তুমি
হলো প্রেমের অবসান।।

বিরহী সুর বুকে বাজে
পারি না তোমায় ভুলে যেতে।
নীরবে দুঃখ *** ফেলে
এই ছিল কী প্রতিদান।।

পপ সঙ্গীত

কেন মন কাঁদেরে

কেন মন কাঁদেরে
মন তো মানে না।
এতো বুঝে এতো জানে
চোখ তো তবু খোলে না।।

স্মৃতি যে তার মনে পড়ে
কত দিন রাগ করে।
সে যে তবু মুখ তুলে না।।

কত যে মেঘ জমে আছে
ব্যাথা হয়ে বুকে বাজে
মেঘে তবু ঝড় উঠে না।।