ছায়াছবি

জল ভরো সুন্ধরি কন্যা গো

জল ভরো সুধরি কন্যা গো,
আরে ও কন্যা জলে দিছো ঢেউ।
হাঁসি মুখে কও না কথা,
সঙ্গে নাই মোর কেউ কন্যা গো।

তুমি তো ভিনদেশী পুরুষ গো,
ওরে ও সুজন আমি ভিন্ন নারী।
তোমার সাথে কইতে কথা,
আম লজ্জায় মরি সুজন রে।

কে বা তোমার মাথা কন্যা গো,
আরে ও কন্যা কে বা তোমার পিতা।
এ দেশে আশিবার আগে তুমি ছিলে কোথা কন্যা গো।

নাহি আমার মাতা পিতা গো,
আরে ও সুজন ঘরভো সদর ঘর।
স্রোতের শ্যাওলার মতো আমি,
ভাইসা বেড়াই সুজন রে।
মনের শুখে তুমি থাকো রে,
আরে ও সুজন সুন্দর নারী লইয়া,
আপন হালে করছো ঘর,
সুখেতে বান্দিয়া সুজন রে।

কন্যা তোমার সনে,
আরে ও কন্যা বান্ধা হিয়া,
মিছে কথা কইছো তুমি,
না কইরাছি বিয়া কন্যা গো।

জল ভরো সুন্দরী কন্যা গো,
আরে ও কন্যা জলে দিছো ঢেউ।

ছায়াছবি

আমি তো পারি না-

মেয়ে=
আমি তো পারি না,আর তো পারি না,
মনের বুঝা বইতে,প্রেমের জ্বালা সইতে।

ছেলে=
আমি তো পারি না,আর তপারি না,
মনের কথা কইতে,তুমি ছাড়া রইতে।

মেয়ে=
আদ ফোঁটা ফুল কলি, দেখনাগো আজ ফুটেছে,

ছেলে=
তাইতো আমার মতো অলি জুটেছে।

মেয়ে=
তুমি কি গো পারো নাকো আরও নিভিড় হতে।

ছেলে=
আমি তো পারি না আর তো পারি না,
মনের কথা কইতে তুমি ছাড়া রইতে।
কানে কানে শোন বলি,যে কথা বাকি রয়েছে।

মেয়ে=
সয়না তোমার দেরি, কি যে হয়েছে,

ছেলে=
বোলো কবে ঘরে যাবে আমার বধু হতে (ঐ)

ছায়াছবি

আমায় দুষ্ট বলো তুমি আরও মিষ্টি করে-

আমায় দুষ্ট বলো তুমি আরও মিষ্টি করে,
ওগো সোনার মেয়ে তুমি থেকো না তবু দূরে।

চোখের আড়াল যতই করি,
তুমি যে রয়েছ হৃদ্যয় জুড়ে।
আমায় দুষ্ট বলো তুমি আরও মিষ্টি করে। ঐ

তুমি যেন তৃষ্ণার ঘরগো,
আমি এক পিপাসিত বালু চর,
তোমাকে পেটে চায় অন্তর।

আমি তো তেমন করে রয়েছি,
মুক্ত যেমন থাকে ঝিনুকে।
কাজল যেমন থাকে দুচোখে।

দুষ্ট ছেলের মিষ্টি কোথায়,
হারিয়ে ফেলেছি এই আমারে (ঐ)

আমি তো তোমার ই চিরদিন,
মিলনে বিরহে অনুক্ষণ।
নিয়েছি দুজনে বন্ধন।

তুমি এক প্রেমের ই কবিতা,
আমি তা দিনরাত পরে যাই,
অলোখে তোমার ই ছোঁয়া পাই।

ইচ্ছে করে জড়িয়ে ধরে,
আদর করি এই শত্রু টারে,

আমায় শত্রু বলো তুমি আরও মিষ্টি করে,
ওগো বন্দু আমার তুমি থেকো তবু দূরে।

ছায়াছবি

আয় রে মেঘ আয় রে–

আ আ আ,আ আ আ আ-
চঞ্চলা হাওয়া রে,ধিরে ধিরে চল রে,
গুন গুন গুঞ্জনে, ঘুম দিয়ে যা রে,
পরদেশী মেঘ রে আর কোথা যাস নে।
বন্দু ঘুমিয়ে আছে,দে ছায়া তারে,
বন্দু ঘুমায় রে,আয় রে মেঘ আয় রে(২)

ওগো ফুল তুমি,আজ ঝরে যাও না,
এই মঘু খনে,বাসর সাজাও না।
ও আচল তুমি,দুরে সরে যেও না,
মুখ ডেকে রাখো,লাজ কেড়ে নিও না।

পরশ ও মনিরে আজ,মন কাছে পেয়েছে।
পরদেশী মেঘ রে,আর কোথা যাস নে (ঐ)

ওগো মেঘ তুমি,এত জরে এসো না,
ঝড় হয়ে শেষে ঘুম ভেঙ্গে দিও না।
ঘুম ভেঙ্গে গেলে,সেতো কাছে রবে না।
না বলা কথা, আর বলা হবে না।

পরশ ও মনিরে আজ মন কাছে পেয়েছে,
পদেশি মেঘ রে,আর কোথা যাস নে (ঐ)

ছায়াছবি

রংধনু ছড়িয়ে

রংধনু ছড়িয়ে চেতনার আকাশে,
আর ভালবাসে, ভালবাসে।

হৃদয়ের সঙ্গিনী আপন জনা,
প্রেম ও ডোরে বন্দিনী চিরো বাসনা(২)
ভাবনায়,মোহনায়,নীরবে মিসে যায়।
আনুভবে জলে পাশে পাশে,
আসে আর ভালবাসে, ভালবাসে (ঐ)

সাগরের মতো চখ,কবিতা হয়ে,
দৃষ্টির মায়া জালে নেয় জড়িয়ে (২)
খেয়ালের,প্রিথিবিতে,আধারের ছোঁয়া দিতে,
গোলাপের মতো যেন হাঁসে,
আসে আর ভালবাসে, ভালবাসে (ঐ)

ছায়াছবি

এসো ওয়াদা করি তুমি আমি দুজনে—

এসো ওয়াদা করি,তুমি আমি দুজনে,
ভালোবাসা যেগে রবে দুটি জীবনে।
নয়নে তোমার ছবি মনে বাসনা,
প্রেমও লতা হয়ে ঝড়িয়ে রবো দুজনা।
এসো ওয়াদা করি তুমি আমি দুজনে ঐ

আকাশে তারা যতো দিন থাকবে,
ততো দিন আমায় মনে রাখবে।
দুচোখে তারা হয়ে তুমি জ্বলবে,
পৃথিবী টা যতদিন থাকবে।

বন্দু তুমি,সাথী তুমি-
যনমে যনমে বাধা রবো দুজনে।
এসো ওয়াদা করি তুমি আমি দুজনে ঐ

জীবনে মরণ আসে সৃতি জেগে রয়,
ইতিহাস হয়ে প্রেম কথা কয়।
ফুল ফুটে ঝরে যায় আবার হাঁসে,
চিরো দিন তুমি রবে পাশে।

তুমি আমার, আমি তোমার,
জীবনে মরনে সাথী রবো দুজনে।
এসো ওয়াদা করি তুমি আমি দুজনে,
ভালোবাসা যেগে রবে দুটি জীবনে।
এসো ওয়াদা করি তুমি আমি দুজনে।।

ছায়াছবি

তোমার এই রুপ দেখে আমি—

তোমার ই রুপ দ্যাখে আমি,দুরে যে রইতে পারি না।
এ আমার কযে হয়েছে,আমি যে কইতে পারি না।

দুটি চোখ স্বপ্ন দেখে যায়,তোমারে কাছে পেতে চায়,
চাইনা রজ্জ সিঙ্ঘাশন, তোমারে চায় যে আমার মন।
চাঁদের মুখে মেঘের ছায়া, আমি তো সইতে পারি না।

তুমি মোর বন্দু হয়ে যাও,আমারে আরো কাছে নাও।
হৃদয়টা তোমারে দিলাম, সেখানে লেখা তোমার নাম।
ভালোবাসার এতো বুজা আমি যে বইতে পারি না।

তোমার ই রুপ দ্যাখে আমি দূরে যে রইতে পারি না,
ে আমার কযে হয়েছে আমি যে কইতে পারি না।

ছায়াছবি

কিছু বলতে ইচ্ছে করে–

কিছু বলতে ইচ্ছে করে,কিছু শুনতে ইচ্ছে করে।
তবু যে কথা টি ভেবে,মন আমার লাজে মোরে।
কিছু বলতে ইচ্ছে করে—

নিযেই জানি না করি কি এখন,
ভালোবাসার কাজল চোখে পরেছি কখন।
একলা পথে তাই তো আমি চলতে পারি না।
কিছু বলতে ইচ্ছে করে—— ঐ

তাই তো লাগে ভয় যদি এমন হয়,
হঠাত কোন ঝোড় হাওয়ায় ভাঙ্গে এ হৃদ্যয়।
বন্দু তুমি থাকলে পাশে নেইকো ভাবনা।

কিছু বলতে ইচ্ছে করে কিছু শুনতে ইচ্ছে করে,
তবু যে কথা টি ভেবে মন আমার লাজে মোরে।
কিছু বলতে ইচ্ছে করে।।

ছায়াছবি

আমি নাচি আর গান শুনাই।

আমি নাচি আর গান শুনাই সবার মন যুগাই,
লোকে মন্দ বলে বলুক তুমি বইলো না।

হেতা কেউবা আলো জ্বালায়, কেউ নিজেরে পুড়ায়।
কারো ফুলের মালা বুকে, কেউ কাটার জ্বালা পায়।
হাতের কাকন নাকের নোলক, পাইলাম না হেতায়,
তোমার লাগি ফইরাছি আজ, সোনার শিকল পায় (২)

আমার এ রুপ দেইখা তুমি ভুল বুইজো না।
লোকে মন্দ বলে বলুক তুমি বইলো না।
আমি নাচি আর গান শুনাই— ঐ

হেতা কেউবা ভালোবাসে,কারো চোখে জল শুকায়,
ভালোবাসার মূল্য দিতে,কারো জীবন চলে যায়।
কিযে চাইলাম কিবা পাইলাম, হইলো কি আমার,

ছায়াছবি

আমি নাচি আর গান শুনাই।

আমি নাচি আর গান শুনাই সবার মন যুগাই,
লোকে মন্দ বলে বলুক তুমি বইলো না।

হেতা কেউবা আলো জ্বালায়, কেউ নিজেরে পুড়ায়।
কারো ফুলের মালা বুকে, কেউ কাটার জ্বালা পায়।
হাতের কাকন নাকের নোলক, পাইলাম না হেতায়,
তোমার লাগি ফইরাছি আজ, সোনার শিকল পায়। (২)

আমার এ রুপ দেইখা তুমি ভুল বুইজো না।
লোকে মন্দ বলে বলুক তুমি বইলো না।
আমি নাচি আর গান শুনাই— ঐ

হেতা কেউবা ভালোবাসে,কারো চোখে জল শুকায়,
ভালোবাসার মূল্য দিতে,কারো জীবন চলে যায়।
কিযে চাইলাম কিবা পাইলাম, হইলো কি আমার,

ছায়াছবি

হাতে হাট রেখে—

হাতে হাত রেখে, চোখে চোখ রেখে (২)
কথা দাও ওগো সাথী,ভুলবে না আমাকে কনো দিন।

এই মন বলে, এই প্রেম বলে, ভেব না ওগো সাথী।
ভুলবো না তোমাকে কোন দিন।

ভালোবাসা জীবনে আসে একবার,
তবু কেন ভয় হয় তাকে হারাবার।

তুমি এলে প্রেম এলো জীবনে আমার,
সাত রঙ্গা শুখি মন খুলেছে দুয়ার।
তাইতো গুন গুন এই মন গাঁয়,
একই সুরে একই তারে বাধা দুটি মন। ঐ

দুটি মন কাছে এসে এক যদি হয়,
সুখে দুঃখে কতো কথা হয় বিনিময়।

তার পর ঘর বাধে সেই দুটি মন,
সেই ঘরে বলো তারা চায় কি তখন।

মুখে তো সে কথা বলা যায় না (২)
কিছু কিছু কথা আছে ভাবতে রঙ্গিন

হাতে হাত রেখে চোখে চোখ রেখে,
কথা দাও ওগো সাথী, ভুলবে না আমাকেও কোন দিন।।

ছায়াছবি

হাতে হাট রেখে—

হাতে হাট রেখে, চোখে চোখ রেখে (২)
কথা দাও ওগো সাথী,ভুল্বে না আমাকে কনো দিন।

এই মন বলে, এই প্রেম বলে, ভেব না ওগো সাথী।
ভুলবো না তোমাকে কোন দিন।

ভালোবাসা জীবনে আসে একবার,
তবু কেন ভয় হয় তাকে হারাবার।

তুমি এলে প্রেম এলো জীবনে আমার,
সাত রঙ্গা শুখি মন খুলেছে দুয়ার।
তাইতো গুন গুন এই মন গাঁয়,
একই সুরে একই তারে বাধা দুটি মন। ঐ

দুটি মন কাছে এসে এক যদি হয়,
সুখে দুঃখে কতো কথা হয় বিনিময়।

তার পর ঘর বাধে সেই দুটি মন,
সেই ঘরে বলো তারা চায় কি তখন।

মুখে তো সে কথা বলা যায় না (২)
কিছু কিছু কথা আছে ভাবতে রঙ্গিন

হাতে হাত রেখে চোখে চোখ রেখে,
কথা দাও ওগো সাথী, ভুলবে না আমাকেও কোন দিন।।

ছায়াছবি

এই দিন সৃতি হয়ে থাক।

এই দিন সৃতি হয়ে থাক, যুগ যুগ ধরে ভুবনে,
প্রেমের ই আলো জ্বেলে যাবো জীবন মরনে।
এই দিন সৃতি হয়ে থাক।

ওয়াদা করে ছিলে চিরো দিন রবে ভালোবেসে,
আজ খুসির এই দিনে তুমি নেই কেন মোর পাশে।
নতুন সাথী পেয়ে ভুলেছো আমায়।
এই দিন সৃতি হয়ে থাক—– ঐ

সুখের সাথী না হই, দুঃখের দিনে কাছে ডেকো,
প্রেম আমার মিছে নয়, এ কথা তুমি যেনে রেখো।
নয়ন জলে রাখবো,আমি যে তোমায়।
এই দিন সৃতি হয়ে থাক, যুগ যুগ ধরে ভুবনে,
প্রেমের ই আলো জ্বেলে যাবো জীবন মরনে।।

ছায়াছবি

না না ভাঙ্গিস না চুড়ি আমার।

না না ভাঙ্গিস না চুড়ি আমার,
তোর হাটের ছোঁয়া পেলে,
মোর চুড়ি ভঙ্গে গেলে,
আমি স্বামীর ঘুম ভাঙ্গাতে পারবো না আর।
না না ভাঙ্গিস না চুড়ি আমার।

না হয় করে একটু জোরা জুরি,
ভেঙ্গে দিলাম না হয় হাটের চুড়ি (২)
পায়ে তো আছে তোর মধুর ঝংকার।

না না ধরিস নে পায়ে আমার।
তোর হাটের ছোঁয়া পেলে,
মোর আলতা মুছে গেলে (২)
আমি ননদীর মন রঙ্গাতে পারবো না আর।
না না ধরিস নে পায়ে আমার।

নাইবা রইলো কন্যা আলতা পায়ে,
নাইবা খুশি হলো ননদ যায়ে (২)
সুন্দরী আছে তোর বেণীর বাহার।

না না ধরিস নে চুলে আমার (২)
তোর হাটের ছোঁয়া পেলে,
মোর বেণী খুলে গেলে (২)
আমি দেবর এর মন রাখতে পারবো না আর।
না না ধরিস নে চুলে আমার (২)

ঐ দেহে রুপের কি আগুন আছে,
এই কথা সকলে যেনে গেছে (২)
কি হবে আচল এ মুখ ডেকে আর।

না না ধরিস নে আচল আমার (২)
তোর হাটের ছোঁয়া পেলে মোর শাড়ি ছিঁড়ে গেলে (২)
আমি শশুরের মন রাখতে পারবো না আর।
না না ধএইস নে আচল আমার (২)

ছায়াছবি

আমার প্রিয়ার দেশে যা রে পাখী যা।

আমার প্রিয়ের দেশে যা রে পাখী যা উড়ে যা,
পা, নী, নী, সা, রি, নী, সা, গা পাখী,
পা, নী, নী, সা, রি, নী, সা,

ছোট্ট খাঁচায় ওরে কেনো, খুঁজিস মনের মিল,
দেখনা চেয়ে আকাশ কতো হয়েছে নীল।
ও ও ও ও ও ও ও—-
ছোট্ট খাঁচায় ওরে কেন খুঁজিস মনের মিল,
দেখনা চেয়ে আকাশ কতো হয়েছে নীল।

গা, পা, মা, রে, মা, গা (২) গা পাখী গা–
আমার প্রিয়ের দেশে যা রে পাখী যা উড়ে যা,
পা, নী, নী, সা, রি, নী, সা গা পাখী—

তুই তো আমার প্রানের পাখী গানের সরন ভরা,
বসন্তের ও মহনিতে মধুর কলস্বরা।

চপল ডানার চঞ্চলতা বন্দ করে আজ,
দুষ্ট পাখী হঠাত করে ভুলে গেলি তা।
ও ও ও ও ও ও ——–
চপল ডানার চঞ্চলতা বন্দ করে আজ,
দুষ্ট পাখী হঠাত কিরে ভুলে গেলি তা।

গা, পা, মা, রে, মা, গা (২) গা পাখী গা।
আমার প্রিয়ের দেশে যা রে পাখী যা উড়ে যা,
পা, নী, নী, সা, রি, নী, সা গা পাখী—- ঐ