ব্যান্ড

সুখী মানুষের ভিড়ে

সুখী মানুষের ভিড়ে হারালে কোথায়(২)
দুটি জীবনের নদী দুটি দিকে যায়
ঝড়ের ই হাওয়ায়

অভিমান বড় হল বলেই
ভুলে আমাকে সরে দাড়ালে
জীবনের রং মুছে দিয়ে
ফেলে আমাকে গেলে আড়ালে
সুখী মানুষের ভিড়ে হারালে কোথায়(২)

ভালোবাসা ভুলে কেন তুমি
দূরে রয়েছো এ কি ছলনা
অভিযোগ অনুযোগ নিয়ে
পর হয়েছো কেন বল না
সুখী মানুষের ভিড়ে হারালে কোথায়(২)

ব্যান্ড

প্রেমিক মেয়র

তুমি আসবে বলে হে প্রিয় নারী
এ শহরের চাবি তোমার হাতে তুলে দিতে
নগরীর তোরণে দারিয়ে আছি
আমি এ শহরের প্রেমিক মেয়র

তুমি আসবে বলে এ শহরে ছুটি
তুমি আসবে বলে বিজয় মিছিলে জুটি
নগরীর তোরণে দারিয়ে আছি
আমি এ শহরের প্রেমিক মেয়র

তুমি আসবে বলে সুর তুলেছে দোয়েল
তুমি আসবে বলে নদী পরেছে পায়েল
নগরীর তোরণে দারিয়ে আছি
আমি এ শহরের প্রেমিক মেয়র

ব্যান্ড

আগের জনম

আগের জমম গেলো ব্রিথাই তোমারি আশায়
এই জনমে থাকব না হয়
তোমার বাসনায় সখী তোমার বাসনায়

সখী তুমি দেখেছো কি মেঘেদের বরষন
তেম্নি আমার সারা নিশি অশ্রু বিসরজন
এই জনমে থাকব না হয়
তোমার বাসনায় সখী তোমার বাসনায়

রিনিকঝিনিক নুপুর বাজাও জানিনা কার সনে
রাত দুপুরে কড়া নারে অতীত আমার মনে
এই জনমে থাকব না হয়
তোমার বাসনায় সখী তোমার বাসনায়

ব্যান্ড

যতীন স্যারের ক্লাসে

যতীন স্যারের ক্লাসে
আড় চোখে তাকিয়ে ছিলে
আমি ভেবেছিলাম সেই তাকানোতে
কিছুটা অনুরাগ কিছু ভালোবাসা ছিল।

আর একদিন পথে দেখে
তুমি বললে মন দিয়ে
করি যেন পড়ালেখা
ধরে নিলাম তুমি এলে কাছে এইতো
ভালোবাসা কোন বাঁধা আর নেইতো

আর একদিন দেখি তোমায় হেঁটে চলেছ
সাথে সাথি নিয়ে তুমি তুলে গুঞ্জন
হাত নেড়ে ডাকি তোমায়
ফিরে তাকাও
বাঁকানো হাসি দিয়ে ব্যথা দাও

ব্যান্ড

হ্যালো ঢাকা

ভালোবাসা জানিয়ে দিলাম মেঘে ভাসিয়ে
তোমার জন্য ঝড়ে ব্ ষ্টি হয়ে
সাক্ষী আছে আকাশ্ ছোয়া দালান কোঠা বাড়ী
জানিয়ে দিলাম তুমি আমার প্রিয়তমা নারী
হ্যালো ঢাকা আমার কথা
শুন তে কি পাও তুমি
হ্যালো ঢাকা

কান্না আছে চোখের কোণে
লুকিয়ে থাকা ঢেউ
জানবে শুধু ঢাকা তুমি
জানবে না তো কেউ
হ্যালো ঢাকা
আমার কথা
শুন তে কি পাও তুমি
হ্যালো ঢাকা

ব্যান্ড

আলো আধারে

আলো আধারে ছিলে ছায়ার মত
জীবনের সাম্ নে এলে অগোচরে
সাথী হবে ভাবিনি তুমি আমার
তুমি আছো আছো বহু কাছে

রাত শেষে সোনালী রোদে
ঘুম জড়ানো অলস সকাল বেলা
অবসরে পড়ার টেবিলে
গোধুলী ক্ষনে আমার গানে গানে

আর কিছু নয় শুধু তোমার ছোয়া
পীদিম জ্বালিয়ে সাজাবো এ ভুবন
দুরে যাওয়ার নেই নেই কোনো ভয়
জড়িয়ে আছো তুমি জীবন শাখা

ব্যান্ড

এরই মাঝে

এরই মাঝে রাত নেমেছে
কত দিন গেছে চলে
এরই মাঝে ঝড় উঠেছে
এ রিদয় ভেঙ্গে গেছে
এলে যবে এত পরে
দাও তুমি দু হাত ভরে
দাও কিছু সুখের ছোয়া
আমার ভাঙ্গা রিদয় জুড়ে

ছোট ছোট কথা সব
এক্ টি দু টি কষ্ট
মুঠো মুঠো সুখ ছিল
এসব ফেলে ছিলে
ছোট ছোট কথা সব
এক্ টি দু টি কষ্ট
মুঠো মুঠোসুখ ছিল
এসব ফেলে কোথায় ছিলে
দুরে ছিলে মাঝখানে
কে জানে কার ভুলে

ভুল গুলো সব ফুল হবে
সুখগুলো ফিরে এলে
দুঃখ সব গল্প হবে
দু চোখ ছুয়ে দিলে
ভুল গুলো সব ফুল হবে
সুখগুলো ফিরে এলে
দুঃখ সব গল্প হবে
দু চোখ তুমি ছুয়ে দিলে
দুরে ছিলে মাঝখানে
কে জানে কার ভুলে

ব্যান্ড

পলাশীর প্রান্তর

কতটা তুমি হারালে বন্ধু কেদেছে অন্তর
জানো না তুমি হারাবার ব্যাথা
জানে পলাশীর প্রান্তর
হারিয়ে গেছে সেখানে মায়ের সোনার নোলকখানি
গোলাভরা খেতের ফসল সাজানো ফুলদানি
এই হারানোর বেদনা তুমি রেখো অন্তরে
দেখবে তোমার দুঃখ লুকাবে পলাশীর প্রান্তরে

কতটা তুমি হারালে বন্ধু কেদেছে অন্তর
জানো না তুমি হারাবার ব্যাথা
জানে পলাশীর প্রান্তর
হারিয়ে গেছে খুদিরামের স্বপ্ন ভরা চোখ
তিতুমীরের সফেদ পাগড়ী জোতিরময় আলোক
এই হারানোর বেদনা তুমি রেখো অন্তরে
দেখবে তোমার দুঃখ লুকাবে পলাশীর প্রান্তরে

এই হারানোর বেদনা তুমি রেখো অন্তরে
দেখবে তোমার দুঃখ লুকাবে পলাশীর প্রান্তরে …………

ব্যান্ড

জীবনজ্বালা

তুমি কি মোর জীবনজ্বালার শেষ কোনো এক গান
না তুমি জোছনারাতের পুরণিমার ই চাদ
তুমি কি মর আশা ভাঙ্গার নতুন কোনো দিন
না তুমি ভেসে আশা এই মন সুরের বীণ
তোমাকে ভালোবেসে আমি রিদয় দিয়ে
গেয়ে যাব আশার ই গান
এ কোনো মিছে আশায় থাকা
আর অকৃতজ্ঞ ভাল লাগা
তোমারই মনের চুরায় রেখে
মোর অন্ত জীবন শেষে
তোমাকে ভালোবেসে মন সপে ছিলাম
প্রদীপ ভেবে আলো জ্বেলেছিলাম
তুমি গাবে জীবনের গান
তুমি তো চাওনি গেতে জীবনের গান
না পারো বুঝতে এই শিল্পী মনের টান
তূমি কি মোর ক্লান্ত দিনের স্তন্ধ কোনো ক্ষণ
না তুমি মেঘলা রাতে হারানো এক মন
তোমাকে আপন ভেবে আমি মনের মাঝে
রাখব বেধে মরনের গান
যায়নি তো তোমার স্বাধীনতা
বুঝিনি গভীর ব্যাকুলতা
আর কোনো আধার অতীত ভুলে
রব নীরব অবশেষে
তোমাকে স্বপ্ন ভেবে আমি ঘুমিয়েছিলাম
প্রহর ভেবে আলো নিভিয়েছিলাম
তুমি গাবে জীবনের গান

তোমাকে স্বপ্ন ভেবে আমি ঘুমিয়েছিলাম
প্রহর ভেবে আলো নিভিয়েছিলাম
তুমি গাবে জীবনের গান
তুমি তো চাওনি গেতে জীবনের গান
না পারো বুঝতে এই শিল্পী মনের টান
তূমি কি মোর ক্লান্ত দিন এর স্তবধ কোনো ক্ষন
না তুমি মেঘলা রাতে হারানো এক মন
তোমাকে আপন ভেবে আমি মনের মাঝে
রাখব বেধে মরনের গান
যায়নি তো তোমার স্বাধীনতা
বুঝিনি গভীর ব্যাকুলতা
আর কোনো আধার অতীত ভুলে
রব নীরব অবশেষে
এ কোনো মিছে আশায় থাকা
আর অকৃতজ্ঞ ভাল লাগা
তোমার ই মনের চুরায় রেখে
রন ণীরব অবশেষে

ব্যান্ড

পালকি ১

তাকে বলে দাও আমি সেদিনের কথা ভুলিনি
তাকে বলে দাও সেই মণিহার আজ ও খুলিনি
তাকে বলে দাও তার ই কারণে এত যন্ত্রণা
তাকে বলে দাও তার ই বিরহে এত বেদনা
সেই দেখা যে শেষ দেখা ছিল বুঝতে পারিনি
সেই প্রভাতে পুব দিগন্তে সুর্য ওঠেনি
থেকে থেকে পাহাড় ছুয়ে ঝরনা ছোটেনি
নদী হয়ে অশ্রু আমার সাগরে মেশেনি
সে যে যায় পালকি যায়
শুনি উম্ না উম না(৩)
সে যে যায় হ্যাপী যায় বহুদুরে ……

তাকে বলে দাও আমি সেদিনের কথা ভুলিনি
তাকে বলে দাও সেই মণিহার আজ ও খুলিনি
তাকে বলে দাও তার ই কারণে এত যন্ত্রণা
তাকে বলে দাও তার ই বিরহে এত বেদনা
তার কথা ছড়িয়ে আছে বোবা বাতাসে
তার স্রিতি যে সোনালী পাখির সুরের আকাশে
সব যাওয়া কি শেষ যাওয়া হয় ফিরে সে আসে
কান ছুয়ে সে কান ছুয়ে সে রয়েছে মিশে
সে যে যায় পালকি যায়
শুনি উম্ না উম না(৩)
সে যে যায় হ্যাপী যায় বহুদুরে ……

ব্যান্ড

ঈশা খা

ছিল মুঘল অহংকার
দিক জয়ী ছলেবলে
করে ভারত অধিকার
গড়ে কীর্তি বহুকালের
একদিন দেখে দুদিকে তার
আছে প্রান্ত ছুয়ে নীলিমা
ঝরে ঝরনা সবুজে অবিরাম
যে জাতি করেনি কো প্রনাম
সোনারগায়ের ও খিজিরপুর
দুর্গে গড়া কদম রসুল
লক্ষী নদীর পাড়ে
গড়ে তোলে প্রতিরোধ ঈশা খা
ঘোরা ছুটিয়ে বীর সেনাদল
ভেঙ্গে দিয়েছে স্বপ্ন যে তার
দিল্লীর মস্ নদ ভিত কাপায়ে এলে ঈশা খা

মুঘল সুবেদার শাফ ওয়াত খা
করে এগারসিন্ধু দখল
ভাওয়াল এর প্রান্ত রুখে চলে
বাংলার বীর সেনাদল(২)
বাধে যুদ্ধ লড়ে ঈশা খা
মুঘল বাহিনীর ত্রাহি দশা
বীর বিজয়ী বীর সে গাথা জানো কি

সম্রাট আকবর
ক্রোধে তেড়ে আসে মান্ সিনহের বাহিনী
৫ সেপ্টেম্বর মুঘল রণতরী(২)
ঘিরে বাংলার সেনানী
বাধে যুদ্ধ লড়ে ঈশা খা
মুঘল বাহিনীর ত্রাহি দশা
বীর বিজয়ী বীর সে গাথা জানো কি

ব্যান্ড

নীরা ক্ষমা কর

কিছু ভুল কিছু অভিমান
দুরে নিয়ে গেল তোমায়
নিরুপায় এই মন সে সময় ছিলো অসহায়
এভাবেই ভালোবাসা একদিন
ঘৃণাতেই পরিণত হয়
সময়ের নিয়মে এ সময়
তবু বয়ে যায়
নীরা ক্ষমা কর আমাকে
এতটুকু সুখ তোমায়
পারিনি দিতে

দুঃখ কত জমিয়ে রেখেছো
অভিমান আভরণে ঢেকেছো
পারবনা সেই অভিমান ভাঙ্গাতে
নতুন আশার কথা শোনাতে
নীরা ক্ষমা কর আমাকে
এতটুকু সুখ তোমায়
পারিনি দিতে

দুটি হৃদয়ের যত কথা
রুপ কথা হয়ে ভেসে গেছে
অনতহীন বিরহের সব দিন
এই হৃদয়ে বাসা বেধেছে
নীরা ক্ষমা কর আমাকে
এতটুকু সুখ তোমায়
পারিনি দিতে

ব্যান্ড

হারিয়ে তোমাকে

রক্তিম আকাশ স্তব্ধ সে খনে
ফিরবে না আর জানিয়ে গেলে
দিন কেটে যায় রুদ্ধ বেদনায়
মন কেঁদে যায় অন্তরালে

তুমি কেঁদেছিলে নিরবে কোন অবহেলায়
আমি বুঝি নি কি শুন্যতা হাসির আড়ালে

হারিয়ে তোমাকে চিনেছি নিজেকে
কত ভালোবাসা হৃদয়ের গহীনে
বেধেছিলে মায়ায় পূর্ন প্রতিক্ষনে
ছিলো না হতাশা আলোকিত জীবনে

শত ভুলে ভাবে মন আজ অনুসুচনায়
তুমি ছাড়া জীবনে…….. ও ও ও

মনে জাগে কত স্মৃতি আজ নিভৃতে
কত সুখের স্বপন ভেঙ্গে গেছে হেলায়

হারিয়ে তোমাকে চিনেছি নিজেকে
কত ভালোবাসা হৃদয়ের গহীনে
বেধেছিলে মায়ায় পূর্ন প্রতিক্ষনে
ছিলো না হতাশা আলোকিত জীবনে

হারিয়ে তোমাকে চিনেছি নিজেকে
কত ভালোবাসা হৃদয়ের গহীনে
বেধেছিলে মায়ায় পূর্ন প্রতিক্ষনে
ছিলো না হতাশা আলোকিত জীবনে

ব্যান্ড

মা

ঐ দূর আকাশের তাঁরারে
বলে দেনা কোনটা আমার মা
মা’কি আমায় দেখতে পায়না
কতদিন দেখিনা মায়ের মুখ
মা’গো মা ওগো মা
তোমার মতো কেউ না।

ঘুম পাড়িয়ে রেখে মা আমাকে
চলে গেলো কোন অজানাতে
কেউ কি জানো
মা কেমন আছে
কত দূরে আছে
বলে দাও আমায়।

মা’গো মা ওগো মা
তোমার মতো কেউ না

ব্যান্ড

স্বর্নলতা

স্বর্নলতা শোনো স্বর্নলতা
প্রেম যদি সত্যি হয়
মরণের আগে দিও দেখা

বুকের পাজরেতে
লিখেছি তমার কথা
স্রিতিগুলো বল্ বে কেদে
যখন আমি থাকবনা

আমার সমাধি তে
জেলোনা প্রদীপমালা
জোনাকীরা জ্বলে জ্বলে
সারারাত ই বল্ বে কথা