নজরুল গীতি

মনে পড়ে

মনে পড়ে আজ সে কোন জনমে বিদায় সন্ধ্যাবেলা
আমি দাঁড়ায়ে রহিনু এপারে তুমি ওপারে ভাসালে ভেলা।।

সেই সে বিদায় ক্ষণে
শপথ করিলে বন্ধু আমার, রাখিবে আমারে মনে
ফিরিয়া আসিবে খেলিবে আবার সেই পুরাতন খেলা।।

আজো আসিলে না হায়
মোর অশ্রুর লিপি বনের বিহগী দিকে দিকে লয়ে যায়
তোমারে খুঁজে না পায়।

মোর গানের পাপিয়া ঝুরে
গহন কাননে তব নাম লয়ে আজো পিয়া পিয়া সুরে
গান থেমে যায়, হায় ফিরে আসে পাখী বুকে বিঁধে অবহেলা।।

নজরুল গীতি

বলেছিলে তুমি তীর্থে আসিবে

বলেছিলে তুমি তীর্থে আসিবে আমার তনুর তীরে।
তুমি আসিলে না, (হায়!) আশার সূর্য ডুবিল সাগর-নীরে।।

চলে যাই যদি, চিরদিন মনে
তোমার সে-কথা রহিবে স্মরণে
শুধু সেই কথা শোনার লাগিয়া হয়তো আসিব ফিরে।।

শুধু সেই আশে হয়তো এ তনু মরণে হবে না লীন
পথ চেয়ে চেয়ে, তব নাম গেয়ে বাজাব বিরহ-বীণ।

হের গো, আমার যাবার সময় হলো
তোমার সে-কথা মিথ্যা হবে না বলো,
কোন শুভক্ষণে নিমেষের তরে জড়াবে কন্ঠ ঘিরে।।

আধুনিক

মা

শহর ছেড়ে অনেক দুরে
অজানা এক গাঁয়ের পথে
মা নামের এক ছোট্ট কথা
হারিয়ে গেছে কুটির ঘরে
আজো কেন খুঁজি তাঁরে
সেই কুটিরের অন্ধকারে ।
পথ চেয়ে হায় থাকতো সে যে
সেই সে ভিক্ষারিনীর বেশে
দেইনি দেখা কইনি কথা
ডাকি নি মা ভালবেসে
কিসের মায়ায় কোন ছলনায়
দিলাম পাড়ি কোন বিদেশে ।
আজ সে মায়ার জাল কেটেছে
নি:শ্ব আমি সব হারিয়ে
তাইতো এলাম তাঁরি খোঁজে
তাঁর সে ভাঙা কুটির দ্বারে
আজ কেন কেউ জেগে নেই
তাঁরি মতন পথটি চেয়ে ।

আধুনিক

বাবা

বছর বছর ধরে বাবা তুমি ক্ষয়ে ক্ষয়ে
কত আশা নিয়ে বুকে গড় তুমি তিলে তিলে
পেরিয়ে সময় যখন কর্মজীবন হলো শুরু
জীবনের যতটুকু পাওয়া এ অবদান তোমারি শুধু।

তোমার চোখে ছিল শাসন-বারন ছিল পথচলা
হৃদয়েতে ছিল মায়ের স্মৃতির দুয়ার খোলা
তোমার নয়ন জুড়ে রাগ অনুরাগ কত ভালবাসা
হাজার ভাষায় ছিল অনেক না বলা কথা
দিন যায় রাত যায় তোমাকে ভাবি।

আমি শিশু থেকে কিশোর ছেড়ে হারিয়ে তোমার স্নেহ
সেই যে আমি রয়ে গেলাম ব্যাস্ত শহরজীবন
বাবা তোমার দ্বারে খবর নিতে তাইতো ছুটি ঘরে
শৈশবের সেই ছোট্ট দুর গ্রাম পথে
দিন যায় রাত যায় তোমাকে ভাবি।।

আধুনিক

বন্ধু

বন্ধু মানে গল্প-কথায় সুখ-দুখের আদান-প্রদান
বন্ধু মানে পরাজিত হৃদয়ে মান-অভিমান
বন্ধু মানে স্মৃতির জালে নিজেকে খুঁজে পাওয়া
স্বর্গীয় মাধুরীতে এ জীবন ছেয়ে রাখা
ওরে বন্ধু আমি ধন্য হোলাম জীবনের সঙ্গী পেলাম
ভেসে যাই একই ভেলাতে ।
মধ্যরাতে সকাল-দুপুর-সাঁঝে
তোরাই আমার রয়েছিস পাশে
মধুর কথায় হাসাহাসি
হাতের খাবার হয় ভাগাভাগি
সবই যেন স্বর্গ-ছায়া ধরণীর বুকে ।
আমার দুখে কিবা সুখোচ্ছাসে
বন্ধু ছিলি আজো আছিস পাশে
আশার আলো তোরাই দেখাস
পৃথিবীকে আপন যত্নে সাজাস
সবই যেন স্বর্গ-ছায়া ধরণীর বুকে ।

নজরুল গীতি

আধখানা চাঁদ হাসিছে আকাশে

আধখানা চাঁদ হাসিছে আকাশে
আধখানা চাঁদ নিচে
প্রিয়া তব মুখে ঝলকিছে
গগণে জ্বলিছে অগনন তারা
দুটি তারা ধরণীতে
প্রিয়া তব চোখে চমকিছে ।
তড়িত লতার ছিঁড়িয়া আধেকখানি
জড়িত তোমার জরিন ফিতায় রাণী
অঝোরে ঝরিছে নীল নভে বারি
দুইটি বিন্দু তারি
প্রিয়া তব আঁখি বরছিসে ।
মধুর কন্ঠে বিহগ বিলাপ গাহে
গান ভুলি তারা তব অঙ্গনে চাহে
তাহারও অধিক সুমধুর সুর তব
চুড়ি কঙ্কনে ঝনকিছে ।