ব্যান্ড

ডাকপিয়নের হাজার

ডাক পিয়নের হাজার চিঠির ভীড়ে
তোমার চিঠি আসবে কি গো
আমার কাছে ফিরে?
কোথায় আছো তুমি কেমন আছো
নাকি হারিয়ে গেছো প্রলয়ও ঝড়ে

নদী ছুটে চলে এঁকে বেঁকে
কাছে পেতে চায় সমুদ্র কে
চাঁদেরও আছে কলঙ্ক
তবুও আকাশ তারে ডাকে

নদীর আছে সাগর
আকাশের আছে চাঁদ
শুধু তুমি আছ বহুদূরে, বহুদূরে
কোথায় আছো তুমি কেমন আছো
নাকি হারিয়ে গেছো প্রলয়ও ঝড়ে

আমার সঙ্গীহীন শূন্য ঘরে
জ্বেলেছি মিছে প্রদীপ মালা
আসবে তোমার চিঠি
মেটাবে মনের জ্বালা

চিঠি তো আসে না, জ্বালা’ত মেটে না
বিষণ্ণতা এই হৃদয় জুড়ে
কোথায় আছো তুমি কেমন আছো
নাকি হারিয়ে গেছো প্রলয়ও ঝড়ে

ব্যান্ড

কখনো কখনো

কখনো কখনো মনে
এলোমেলো বৃষ্টি ঝরাও
হারিয়ে যাওয়া সেই তুমি
স্মৃতি হয়ে আমাকে কাঁদাও
হায় প্রেম, একি প্রেম

আছ এখনো কি কাছে
নাকি আছ বহু দুরে
প্রেম, একি প্রেম

কখনো ভেজা পথে একাকী চলা
জানি না কখন দু নয়ন ভাসে জলে
তুমিও আজো কি ডাকো কাছে
প্রেম, একি প্রেম

আছ এখনো কি কাছে
নাকি আছ বহু দুরে
প্রেম, একি প্রেম

কিছুটা সময় ছিল তোমাকে পাওয়া
প্রতিটি ক্ষণে তুমি ছিলে আলিঙ্গনে
তোমাকে এখনো ডাকি কাছে
প্রেম, একি প্রেম

আছ এখনো কি কাছে
নাকি আছ বহু দুরে
প্রেম, একি প্রেম

র‍্যাপ

এ যে সারাদিন

এ যে সারাদিন শুধু কাটিয়ে দিলাম
তবুও তোমার দেখা পাব ভেবেছিলাম।

সেই সকাল সকাল উঠে ঘুম ঘুম চোখে
কোনরকম হাতে হাত মুখ ধুলাম
ঘরের কারো কথা কানে না তুলে
কিছু না খেয়ে হুট করে বেরুলাম
বেরিয়েই দেখি কোন বেবি রিক্সা নেই
তাই কিছুক্ষণ দুটো পা চালালাম
দৈবক্রমে এক রিক্সা পেলাম
আর তাই নিয়ে ঝড়ের বেগে ছুটলাম
সব কিছু বোধয় বুঝি গেলো বিফলে
রমনায় দেখি তুমি নাই আমি এসে।।

ঠিক ঘড়ির কাটা যখন ছুলো দশটায়
সেই তখন থেকের আমি আছি রমনায়
গেলো বারে আমি দেরী করেছিলাম
তাই তোমার মেজাজ ছিল ভেরী ভেরী হাই
ফোনে আমায় কত না কত ভাবে শাসালে
যেন দশটার মাঝে আমি পৌঁছে যাই
তাই আজ এসেছি আমি সময় মত
তুমি এসেই শুধু পৌঁছালেই হয়
এ যে ভীষণ জ্বালা রোদে দাঁড়িয়ে থাকা
যেনো চুলার উপর শিক কাবাব হওয়া।।

হেঁটে যায় প্রেমিকা প্রেমিক আর কপোত কপোতী
আসবে মজে আছে প্রেমালাপে মুখোমুখী
দেখে হিংসায় মেজাজটা তিরিক্ষি হয়
তখনও তোমার কোনো পাত্তা নেই
কোথায় কোথায় ছিল তোমার জাজমেন্ট
তবে কেন গত রাতে করলে ফোনে আর্গুমেন্ট
তোমাকে না পেয়ে বাযু চড়েছে মাথায়
আগুন জ্বলেছে পেটে ক্ষুধার ভীষণ জ্বালায়
ডাকি চা’ওয়ালা, এক চুমুক দিতেই কাপে-
গরমে গরমে মুখ গেলো পুড়ে
কপাল খারাপ হলে বুঝি এমনি ঘটে
পাশে দাঁড়িয়ে থাকা টোকাই হেসে ওঠে
শুরু করি কিছুক্ষণ পায়চারী
দেখি রমনায় প্রেমিকাদের বাড়াবাড়ি।।

আহ! যদি বুঝতে তুমি আমার প্রবলেম
তবে তীর্থের কাক সেজে বসে থাকতে
আমি বুঝেছি বুঝেছি তোমার সব ফাঁকি
আমায় চটিয়ে কত মজা করবে তুমি
জানি চাইবে চাইবে ক্ষমা টেলিফোনে
তোমায় করবো ক্ষমা চিরতরে কাছে পেলে
তাই আজ চলি ভাঙ্গা মনে বাড়ির পথে
যেতে দু টাকার চিনা বাদাম খেতে খেতে।।

ব্যান্ড

শুভ্র সুনীল

শুভ্র সুনীল এই সন্ধ্যা বেলায়
হাজার তাঁরা ভাসে মেঘেরই ভেলায়
আর আমি বসে নির্জনে
স্বপ্নিল দুচোখে আঁকছি তোমায়।

পাহাড় ছোঁয়া বাতাস এসে
আবির ছড়ায় দুচোখে
স্বপ্ন এসে জড়িয়ে ধরে
স্মৃতির পাতাগুলো উড়ে চলে
আর আমি বসে নির্জনে
স্বপ্নিল দুচোখে আঁকছি তোমায়।

হাজার তাঁরাতে দৃষ্টি রেখে
ব্যথায় কেঁদে ওঠে মন
জলে ভরে চোখ
ভেবে ভেবে তোমায়
কাঁদে চোখ স্মৃতির আড়ালে
আর আমি বসে নির্জনে
স্বপ্নিল দুচোখে আঁকছি তোমায়।

ব্যান্ড

এ হৃদয় কাননে

এ হৃদয় কাননে প্রতিদিন যে ভোরে
কত ফুল ফোটে আর যায় ঝরে
শুধু থাকি বসে, এলো সে মেয়েটি
কুড়াতে ফুলেদের আচলে, নাম জানতে
বললো সে ফুলের নামে ডেকো

শোনো শোনো মেয়ে থাকো না কিছুক্ষণ
ঝরা ফুল দেবো, তার সাথে দেবো মন

অজানায় প্রভাতে ভৈরবীর সুরেতে
ভেঙ্গেছ দুচোখ মন জুড়ে
ফাগুনের হওয়াতে দুলেছি সব ভুলে
তোমার ওই নূপুরের সুখ ছন্দে
তুলেই ঝড় যেও না দিয়ে মরণ

শোনো শোনো মেয়ে থাকো না কিছুক্ষণ
ঝরা ফুল দেবো, তার সাথে দেবো মন

ব্যান্ড

সাতকাহন

যদি ফুল কখনো না ফোঁটে
ঐ সূর্য যদি না ওঠে
তবুও বলতে চাই
একটি কথাই ভালোবাসি
তুমি আমার ভালবাসার সাতকাহন
তুমিহীনা বাঁচবো না একটি ক্ষণ৷

পূর্ণচন্দ্র রাতে জোছনা যদি হারায়
সাগরের সব জল যদি শুকায়
তুমি আমার ভালবাসার সাতকাহন
তুমিহীনা বাঁচবো না একটি ক্ষণ৷

একটিও পাখি যদি
কখনো নাই বা ডাকে
আকাশের সব নীল মেঘে ঢাকে
তুমি আমার ভালবাসার সাতকাহন
তুমিহীনা বাঁচবো না একটি ক্ষণ৷

ব্যান্ড

সুমন চ্যাটার্জীর তোমাকে চাই

সুমন চ্যাটার্জীর তোমাকে চাই
নচিকেতার প্রেম নীলাঞ্জনা
অঞ্জন দত্তের বেলা বোস
অত কিছু বলতে পারবো না।।

প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত
বহুবার বলেছি তোমাকে চাই
নীলাঞ্জনার মত ব্যর্থ তোমাকে
ঝুলতে হবে না বারান্দায়।

বেকার নই ডিগ্রীটা আছে
এখন বল তবে সমস্যা কিসে
সুমন চ্যাটার্জীর তোমাকে চাই।

ব্যর্থ প্রেমের তপ্ত কথা
শুনে শুনে অনেক হয়েছি বোর
প্রেমের ইতিহাস দেই পাল্টে
যেখানে দুঃখ আর নো মোর।

প্রেম মানে একা, একা একা থাকা
হোক না প্রেম মানে ঘন ঘন দেখা।।

ব্যান্ড

স্বপ্নের সৈকতে

স্বপ্নের সৈকতে তুমি গাংচিল
মনেরই ঢেউ ছুঁয়ে যায়
রংধনু বিকেলে শেষ গোধূলি
আঁধারিতে কেন যে হারায়৷

থেমে গেছে কোলাহল
থেমে গেছে রাখালি বাঁশি
তোমারি ভাবনায় মন তবু
হয়ে থাকে উদাসী৷

অনুভূতি অনুরাগে শুধু
মনের জানালা দাও খুলে দাও৷

ঘাস ফুল হয়ে আছি
নাক ফুল করে তুলে নাও
সন্ধ্যা আকাশ হয়ে ডাকি
জোনাকি ভালবাসা দাও৷

অনুভূতি অনুরাগে শুধু
মনের জানালা দাও খুলে দাও৷

ব্যান্ড

অনুভবে কল্পনাতে

অনুভবে কল্পনাতে যে মিশে রও
হাসির ঝলকে তুমি রজনীগন্ধা ফোঁটাও
উদাসী মন শুধু তোমার পানে চেয়ে রয়
ভাবনা গুলো শুধু তোমার ছবি এঁকে যায়

হায়রে এ কোন সুখ আমার
বিভোর তোমার স্বপনে
কখনো আগে বুঝিনি
ভালবাসা কারে কয়

অন্ত যাওয়া বিকেলে
একাকী দাঁড়িয়ে ছিলে
বৃষ্টিতে কি যে মায়া ছিল
ভালবাসা কেড়ে নিলে

আলো আঁধারিতে লাগছিল তোমাকে
স্রষ্টার গড়া কোনো প্রতিমা যেন

লজ্জার মায়ার জাল আনমনে ছিন্ন করে
ভালবাসা দিলে দু হাতে ভরে
গোপনে বিজনে সুখ আমাকে পেয়ে
ইন্দ্র জালের মোহে জড়িয়ে ধরে

ব্যান্ড

টানা টানা চোখ

যদি ডাকলে এই রাত দুপুরে
আসবে কি গো মহুয়ার বনে
আমার মন তোমার পেতে চায়
আমার মন, তুমি বোঝো এ রাতে
ফুলের সৌরভে তুমি এসো, তুমি এসো-

টানা টানা টানা ও চোখে দেখেছি
চাঁদের আলো, তুমি এসো
জোছনা ঝিকিমিকি রেশমি পৃথিবী
এসো না গো, এসো না গো।

এ হৃদয় মেতেছে কোন সুখে
তোমার পদ ধ্বনি পেয়েছি বুকে
আমার মন তোমার পেতে চায়
আমার মন, তুমি বুঝো এ রাতে
ফুলের সৌরভে তুমি এসো, তুমি এসো-

টানা টানা টানা ও চোখে দেখেছি
চাঁদের আলো, তুমি এসো
জোছনা ঝিকিমিকি রেশমি পৃথিবী
এসো না গো, এসো না গো।

এখনি নিভে যাবে,
চাঁদের হাসি প্রভাতে এসে।

আধুনিক

চলে যেতে যেতে

চলে যেতে যেতে যদি কিছু মনে পড়ে
পিছু ফিরে চেও না তুমি
ভুলে যেতে যেতে যদি আমায় মনে পড়ে
আঁখি জল ফেলো না তুমি
বুকের জমাট স্মৃতি যদি ধুলোয় ঢাকা পড়ে
তবুও আমি হারিয়ে যাইনি

হয়তোবা ভেবেছিলে সুখী হবে আমায় ছেড়ে
সুখী হতে পারোনি তুমি
হৃদয়ের আয়নাতে চেনা যে মুখ ভাসে
কোনো আচলে ঢাকা পড়েনি জানি
বুকের জমাট স্মৃতি যদি ধুলোয় ঢাকা পড়ে
তবুও আমি হারিয়ে যাইনি

আজো সেই রাত আসে পূর্ণিমা চাঁদ হাসে
দক্ষিণা জানালাতে দাড়িয়ে তুমি
মাঝ রাতে ঘুম ভাঙ্গে ধুরু ধুরু বুক কাঁপে
আজো সেই স্মৃতি পিছু ছাড়েনি জানি
বুকের জমাট স্মৃতি যদি ধুলোয় ঢাকা পড়ে
তবুও আমি হারিয়ে যাইনি

বাউল

করিমানা কাম করে না

করিমানা কাম ছাড়ে না মদনে
প্রেম রসিক হব কেমনে আমি

এই দেহেতে মদন রাজা করে কাচারি
কর আদায় করে নিয়ে যায় হুজুরি
মদন যে দুষ্টু ভারি তারে দেয় তহশিলদারি
করে সে মুন্সিগিরি গোপনে

চোর দিয়ে চোর ধরাধরি একি কারখানা
আমি তা জিজ্ঞাসিলে তুমি বল না
সাধু সব চুরি করে চোর দেখে পালায় ডরে
নিয়ে যায় শূন্য ভরে কোনখানে

লালন সাঁই যে বিনয় করে সিরাজ সাঁইর পায়
স্বামী মারিলে লাথি নালিশ করিবো কোথায়
তুমি মোর প্রাণ পতি কি দিয়ে রাখবো রতি
কেমনে হব সতী চরণে।

ব্যান্ড

ভালবাসতেই হবে

জ্যোছনা স্নাত এই রাতে অথবা নয় কাল প্রভাতে
হৃদয়ের দ্বার খুলে দেবে আমাতেই
বলবেই তুমি বন্ধু আমার তাকিয়ে দেখ এই আমি তোমার
ঘৃণা সব পরিণত ভালবাসায়

আজ নয় কাল বলতে হবেই
অভিমান যত সব ভাঙ্গবেই
অমাবস্যায় চাঁদ উঠলে দেখবোই, আ হা! হা!

ভালবাসতেই হবে আমাকে যে তোমার অবশ্যই,
ভালবাসতে হবে আমাকেই যে তোমার অবশ্যই,
ভালবাসতে হবে।

তখন আমি যা চাই চাইলেই যেন তা পাই
পারবেনা করতে অস্বীকার হৃদয়ে অস্তিত্ব আমার।

আজ নয় কাল বলতেই হবে
অভিমান যত সব ভাঙ্গবেই
অমাবস্যায় চাঁদ উঠলে দেখবোই, আ হা! হা!

ভালবাসতেই হবে আমাকে যে তোমার অবশ্যই,
ভালবাসতে হবে আমাকেই যে তোমার অবশ্যই,
ভালবাসতে হবে।

জ্যোছনা স্নাত এই রাতে অথবা নয় কাল প্রভাতে
হৃদয়ের দ্বার খুলে দেবে আমাতেই
বলবেই তুমি বন্ধু আমার তাকিয়ে দেখ এই আমি তোমার
ঘৃণা সব পরিণত ভালবাসায়

আজ নয় কাল বলতেই হবে
অভিমান যত সব ভাঙ্গবেই
অমাবস্যায় চাঁদ উঠলে দেখবোই, আ হা! হা!

ভালবাসতেই হবে আমাকে যে তোমার অবশ্যই,
ভালবাসতে হবে আমাকেই যে তোমার অবশ্যই,
ভালবাসতে হবে।

ব্যান্ড

পারবেনা ফেরাতে এই মন

যদি সাগর এসে বলে চলে যেতে
তোমাকে ছেড়ে, দুরে-বহুদূর
যদি গাংচিল বলে কানে কানে
ভুলে যেতে, তোমার চিরদিন
যদি তুমিও এসে বলো, বলো ভুলে যেতে
জেনে যাও, শুনে যাও লিখে রাখো সোনালী পাতায়-
পারবেনা ফেরাতে এই মন, ফেরানো যাবে না আমায়
ভালবাসবোই, ভালবাসবো আমি তোমায়
ভালোবেসে যাব আজীবন

যদি কাছ দিয়ে এসে বলে বনভূমি
দেখো তো চেয়ে, অরণ্যের রূপ
যদি পাশে এনে দেখায় ওই নীলাকাশ
জ্বলে থাকা ধ্রুবতারা

যদি তুমিও দেখাও আমায়, দৃষ্টির ওই সীমানা
দেখি না, বুঝি না, তুমি থাকো চোখেরই পাতায়
পারবেনা ফেরাতে এই মন, ফেরানো যাবে না আমায়
ভালবাসবোই, ভালবাসবো আমি তোমায়
ভালোবেসে যাব আজীবন

ব্যান্ড

ভেঙ্গেছে ডানা দুটো আমার

ভেঙ্গেছে ডানা দুটো আমার
ভেঙ্গেছে কোন ঝড়ে
নীলিমার পাখি আমি কেন হায়-
আছি পথে পড়ে
সাথীরা ডানা মেলে আজ-
আকাশে উড়ে চলে
গোধূলির রং মেঘে সাঁঝের আলোয়-
কত না কথা বলে

ও, আমিও ডানা মেলে আকাশে উড়তে চাই
ও, আমিও গোধূলির রং রঙ্গে জড়াতে চাই

কুয়াশা ভেজা ঝাউ বনে
ছড়ানো শিশির ঘাসে
কুয়াশা শিশির রোদেরই কণায়
মুক্ত হয়ে হাসে
ও, আমিও ডানা মেলে আকাশে উড়তে চাই
ও, আমিও গোধূলির রং রঙ্গে জড়াতে চাই

সোনালী আকাশ যেন বারে বারে ডাকে ফিরে আমায়
ভেঙ্গেছে ডানা দুটো আমার
ভেঙ্গেছে কোন ঝড়ে
নীলিমার পাখি আমি কেন হায়
আছি পথে পড়ে