জীবনমুখী গান

আমার ইচ্ছে করে

আমার ইচ্ছে করে আকাশ বাড়ির ছাদ
ভেঙে বৃষ্টি আসুক, ভাসুক অবসাদ।
আমার ইচ্ছে করে হাতের পাঁচিল দিয়ে
তোকে জড়িয়ে থাকি সকাল থেকে রাত।
আমার ইচ্ছে করে সকাল চাদর হয়ে
রাতের কালো জাপ্টে ধরে রাখি।
আমার ইচ্ছে করে বিধানসভায় গিয়ে
দেয়ালে অপুষ্টির ছবি আঁকি।
আমার ইচ্ছে করে, তুই যখন অসহায়,
গোটা দুনিয়াটাকেই বলি মুর্দাবাদ।
আমার ইচ্ছে করে হাতের পাঁচিল দিয়ে
তোকে জড়িয়ে থাকি সকাল থেকে রাত।
আমার ইচ্ছে করে শীতবেড়ালের মতো
কুঁকড়ে শুয়ে থাকি রে তোর কোলে।
আমার ইচ্ছে করে সিদ্ধ নগর গড়ি
এই শহরের নিষিদ্ধ অঞ্চলে।
আমার ইচ্ছে করে বলি করে চীৎকার—
আমার বকলেস্হীন জীবন জিন্দাবাদ।
আমার ইচ্ছে করে হাতের পাঁচিল দিয়ে
তোকে জড়িয়ে থাকি সকাল থেকে রাত।

জীবনমুখী গান

তুমি কে ?

তুমি যদি চাও সূর্যকে নিয়ে যাব তোমাদের বাড়ি,
তুমি যদি চাও অক্সিজেনের সাথে করে দিব আড়ি।
যদি তোমার দু’চোখ রাত্রিকে খোজে পৃথিবীকে দিবো মুড়ে,
তুমি চাইলেই বোবা পৃথিবীটা ভরে দেব সুরে সুরে।
তুমি কে ? , তুমি কে ? , তুমি কে ?, তুমি কে ? ও তুমি কে..?
তুমি চাইলেই চিৎকার করে বলব তোমার নাম
তুমি কে ? , তুমি কে ? , তুমি কে ?, তুমি কে ? ও তুমি কে..?
,
তুমি চাইলেই আমি পরাবোই যেন বাঘের গলায় মালা,
তুমি চাইলেই কোন মন্ত্রীকে আমি সোজা বলে দেব শালা।
এই আমার বুকেতে অনেক আগুন গোটা দেশ যাবে জ্বলে,
তবু পারছিনা জ্বলে উঠতে শুধু তুমি বলছনা বলে,
তুমি সুন্দর, তুমি সুন্দর, কি দারুন তোমার হাসি,
ঐ হাসির জন্য সহস্র বার যেতে রাজি আমি ফাঁসি।
কোলকাতাটাকে কিনে এনে দিব দিয়ে সাত টাকা দাম।
তুমি কে, তুমি কে, তুমি কে, তুমি কে ও তুমি কে..?
,
তুমি চাইলেই ফিদা হোসেন কে দিয়ে আকাঁবো তোমার ছবি,
তোমাকেই লিখবে কবিতা সাড়ে দশ হাজার কবি।
তুমি চাইলেই স্কুল সিলেবাসে আমি তোমার জীবনী ছাপাবো,তুমি চাইলেই ছয় ইঞ্চি ইস্কেলে হিমালয়টা কে মাপাবো,তুমি চাইলেই দেবনা তো ভোট লোক অথবা বিধান সভায়,তুমি চাইলেই আমি চিরে দেব বুক প্রকাশ্য জনসভায়,তুমি চাইলেই, খেয়ে নিবো সায়নায়েট ৫০০ গ্রাম…
তুমি কে ? , তুমি কে ? , তুমি কে ?, তুমি কে ? ও তুমি কে..?
তুমি কে ? , তুমি কে ? , তুমি কে ?, তুমি কে ? ও তুমি কে..?…….

জীবনমুখী গান

আমি পারবোনা,পারবোনা রাখতে প্রেমের মান

হতে পারতো অনেক কিছুই,
হতে পারতো সবি ভাল,
এসে পড়তো রোদের ছটা,
যখন মনের আকাশ কালো ।
তাই তোমার আশায় থাকি,
আমি অন্ধকারের পাখি,
উড়ে যাবেই চলে গায়বে পাখি সেকল ভাংগার গান,
আমি পারবোনা,পারবোনা রাখতে প্রেমের মান।।
*
ভালবাসা প্রতিস্রুতি গাল ভরা কথা,
আচলে আমায় ধরেছ জমবে বুকে ব্যথা।
ভালবাসা বাচেনা শর্তের শাসনে,
গেল যে পরাণটা গেল আচলের বাধনে।
তবু সবুজ ছবি আকো, আর মনে মনে ডাকো,
আমি আসবোনা শুনবোনা ভালবাসার গান,
আমি পারবোনা,পারবোনা রাখতে প্রেমের মান।।
*
হতে পারতো অনেক কিছুই,
কিছু হবেনা তাও জানি,
হওয়ার মধ্যে হতে পারে তোমারি হয়রানি।
আমি পরকিয়াই যাবো,
তোমার প্রেমের নাম ডোবাবো,
তুমি জানো চাতুরি ছলনার পথেই আমি যাবো।
তবু আশায়ও বুক বাধো, কতো কাদো কতো সাধো ।
আমার ঘরে ফেরার আশাতে গাও ঘরে ফেরার গান,
আমি পারবোনা,পারবোনা রাখতে প্রেমের মান।।
*
……………