জীবনমুখী গান

আমার ভাঙ্গা তরী ছেড়া পাল

আমার ভাঙ্গা তরী ছেড়া পাল
চলবে আর কত কাল
ভাবি শুধু একা বসিয়া
রে দয়াল,এভাবে আর চলবে কতকাল

তরী কিণারায় ভিড়াইয়া
ভাবি শুধু কাদিয়া ।।
যাবে কি এমনি দিন হাল
রে দয়াল,এভাবে চলবে কতকাল

জীবন দিলা কাঞ্চা বাশের
খাচার মতন
যত্ন নেবার আগেই তাহা
ভাঙ্গে অবিরত, দয়াল

ধনীরে ধন দিলা
গরীবের তুইলা পিঠের ছাল
রে দয়াল, এভাবে আর চলবে কতকাল

সুখের পাখি নীড় বাধিতে
যায়না সে ভুলে
যত্ন করে নীড় বাধে হায়
সুখের দুকুলে

তেলে চুলে তেল দিলা
বুঝলানা জটা চুলের হাল
রে দয়াল, এভাবে আর চলবে কতকাল

পল্লীগীতি

তোরে রাং দিল কি সোনা দিল

তোরে রাং দিল কি সোনা দিল, তুই পরখ কইরে দেখলি না
গুরু তোরে কী ধন দিল চিনলি না মনা

গুরু দিল খাঁটি সোনা
রাং বইলে তোর জ্ঞান হইল না, ওরে দিনকানা
ওরে উপাসনা বিনে কি তোর মিলিবে রে রুপাসোনা
গুরু তোরে কী ধন দিল চিনলি না মনা
তোরে রাং দিল কি সোনা দিল

চণ্ডীদাস আর রজকিনী
তারা প্রেমের শিরোমণি, রাং কইরাছে সোনা
তারা এক প্রেমেতে দুইজন মইলো, এমন মরে কয়জনা
গুরু তোরে কী ধন দিল চিনলি না মনা
তোরে রাং দিল কি সোনা দিল, তুই পরখ কইরে দেখলি না
গুরু তোরে কী ধন দিল চিনলি না …

ব্যান্ড

আরও কিছুক্ষণ কি রবে বন্ধু

আরও কিছুক্ষণ কি রবে বন্ধু
আরও কিছু কথা কি হবে ।।

বলবে কি শুধু ভালোবাসি তোমায়
বলবে কি শুধু তুমি যে আমার
মুছে ফেলে সব জড়তা ।।

আরও কিছুক্ষণ কি রবে বন্ধু
আরও কিছু কথা কি হবে।

কাজলো সে চোখের অতল গভীরে
হারিয়ে যে আমি একাকার
মিষ্টি সে সুরে রিনিঝিনি কাঁকন
দিয়েছে যে আমায় পরপার
বলবে কি শুধু ভালোবাসি তোমায়
বলবে কি শুধু তুমি যে আমার
মুছে ফেলে সব জড়তা ।।

আরও কিছুক্ষণ কি রবে বন্ধু
আরও কিছু কথা কি হবে ।।

সাগরেরই বুকে উড়ে যায় গাংচিল
তুমি যেন তার ঠিকানা
জীবনেরই পথে একে যাই যার ছবি
তুমি যেন তার উপমা
বলবে কি শুধু ভালোবাসি তোমায়
বলবে কি শুধু তুমি যে আমার
মুছে ফেলে সব জড়তা ।।

আরও কিছুক্ষণ কি রবে বন্ধু
আরও কিছু কথা কি হবে ।।
বলবে কি শুধু ভালোবাসি তোমায়
বলবে কি শুধু তুমি যে আমার
মুছে ফেলে সব জড়তা ।।

আরও কিছুক্ষণ কি রবে বন্ধু
আরও কিছু কথা কি হবে………

আধুনিক

তুই যদি চিনতি আমায় পরাণের পাখি

তুই যদি চিনতি আমায় পরাণের পাখি
তোর লিখে দিতাম আমার এ দুটি আঁখি ।।

ভাল যদি বাসতি আমায় দেখতিস কি আদরে রাখি ।।

তুই ছাড়া ত্রিভূবনে আর কেউ নাই।
আমি তোকে আমার সারা জনম দিতে চাই
তুই যদি পরাণ আমার রাখতিস বাধি
তোর লিখে দিতাম আমার এ দুটি আঁখি
ভাল যদি বাসতি আমায় দেখতিস কি আদরে রাখি ।।

আমি ডাকি তুই পাখি থাকিস না দূরে ।।
আমার এ জীবনটা চলে তোর অনুসারে
তুই যদি বলিস প্রেম অপরাধী
তোর লিখে দিতাম আমার এ দুটি আঁখি
ভাল যদি বাসতি আমায় দেখতিস কি আদরে রাখি ।।

তুই যদি চিনতি আমায় পরাণের পাখি
তোর লিখে দিতাম আমার এ দুটি আঁখি ।।
ভাল যদি বাসতি আমায় দেখতিস কি আদরে রাখি ।।

লালন

তিন পাগলে হল মেলা

তিন পাগলে হলো মেলা নদে এসে
তোরা কেউ যাসনে ও পাগলের কাছে ।।

একটা পাগলামি করে
জাত দেয় সে অজাতেরে দৌড়ে গিয়ে
আবার হরি বলে পড়ছে ঢলে
ধূলার মাঝে ।।

একটা নারকেলের মালা
তাতে জল তোলা ফেলা করঙ্গ সে
পাগলের সঙ্গে যাবি পাগল হবি
বুঝবি শেষে ।।

পাগলের নামটি এমন
বলিতে অধীন লালন হয় তরাসে
চৈতে নিতে অদ্বৈ পাগল
নাম ধরে সে ।।

তোরা কেউ যাসনে ও পাগলের কাছে….. !!

আধুনিক

দুই পৃথিবী

দুই পৃথিবী আপন আমার, দুই পৃথিবীই টানে
কোন পৃথিবী ছেড়ে যাবো, কোন পৃথিবীর পানে।।

এক পৃথিবী একলা তুমি, এক পৃথিবী সবাই
দুই আকাশেই মায়ার ঘুড়ি আমার হাতে নাটাই।।

আমি ছাড়া আমার ব্যাথা আর কেও না জানে ।।

এক পৃথিবী ভেঙ্গে যদি এক পৃথিবী সাজাই
বেঁচে থেকেও বেঁচে থাকার বাঁচার মানে হারাই।।

আমি ছাড়া আমার ব্যাথা আর কেও না জানে।।

দুই পৃথিবী আপন আমার, দুই পৃথিবীই টানে
কোন পৃথিবী ছেড়ে যাবো, কোন পৃথিবীর পানে।।

আমি ছাড়া আমার ব্যাথা আর কেও না জানে।।

ব্যান্ড

ও বিজলী চলে যেও না

চোখের দেখাই মনের দেখা হয়,
চোখের দেখাই যদি মনে রয়
ভালোবেসে তোমরা তাকে কি বলবে, কি বলবে ?
ও বিজলী চলে যেও না, ও বিজলী চলে যেও না,
সব কথা কি খুলে বলা যায়,
কিছু হবে চোখের ইশারায় ও বন্ধু
কিছু হবে চোখের জল নির্দেশ হইবো।
কি বলবে ? ও বিজলী চলে যেও না, ও বিজলী চলে যেও না ।

মনে আমার ধরেছে নেশা
বুকে আমার কামনার তৃষ্ণা
রূপের যাদু বড় যাদু গো,
মনের মায়া বড় মায়া গো
মায়ার জালে পরছি ধরা
ও বিজলী…
ও বিজলী চলে যেও না, ও বিজলী চলে যেও না।

তোমায় আমি করেছি নিশানা,
মনের আড়াল হতে দিব না
হিয়ায় বাঁধা পরেছে হিয়া
কনোদিনও ছেড়ে যেও না গো সোনা
যাইও না, যাইও না চলিয়া
ও বিজলী…
ও বিজলী চলে যেও না,ও বিজলী চলে যেও না।

চোখের দেখাই মনের দেখা হয়,
চোখের দেখাই যদি মনে রয়
ভালোবেসে তোমরা তাকে কি বলবে, কি বলবে ?
ও বিজলী চলে যেও না, ও বিজলী চলে যেও না,
সব কথা কি খুলে বলা যায়,
কিছু হবে চোখের ইশারায় ও বন্ধু
কিছু হবে চোখের জল নির্দেশ হইবো।
ও বিজলী…
ও বিজলী চলে যেও না, ও বিজলী চলে যেও না ।।
যেও না, যেও না বিজলী চলে যেও না, যেও না……………..

ছায়াছবি

ও বন্ধু লাল গোলাপী

ও বন্ধু লাল গোলাপী, ও বন্ধু লাল গোলাপী
কই রইলা রে,
এসো, এসো বুকে রাখবো তোরে
এসো, এসো বুকে রাখবো তোরে (২)

তুমি বন্ধু হইলে আমার নাইতো কিছু বাকি চাওয়ার
তুমি আমি দু’জন মিলা সাজাইবো সুখের সংসার
আরে সাজাইবো সুখের সংসার
তোমারে পাইলে সখি, তোমারে পাইলে সখি হইতরে
এসো, এসো বুকে রাখবো তোরে
এসো, এসো বুকে রাখবো তোরে

ফুলশয্যা সাজাইবো, ফুলশয্যা,
প্রেম দশা খেলাইবো
আমার মনের যত্ত আশা সবি মিটাইবো
মিটাইবো, আরে আশা সবি মিটাইবো
রাখিব তোরে আমার, রাখিব তোরে আমার আদরে
এসো, এসো বুকে রাখবো তোরে
এসো, এসো বুকে রাখবো তোরে ।।

ব্যান্ড

মন আমার পাথরের দেয়াল সে এক

মন আমার পাথরের দেয়াল সে এক
যত আঘাত কর সব সহ্য করেই যাবে
মন আমার তুমি যত দুরে যাও
আজীবন তোমাকে ভালবেসে তবু যাবেই
কত ভালবাসা তোমার জন্য রাখা
সে কথা তুমি যদি জানতে
বুক চিরে দেখাতে পারলে
লুকিয়ে চোখ তুমিও কানতে।

ভালবাসা আমার সুদৃশ্য কাঁচ তো নয়
একটু আঘাতে চূর্ণ সে হবেই।
এই ভালবাসা গোলাপের পাপড়ি নয়
একটু বাতাসে ঝরে কেন যাবে ? ।।
কত ভালবাসা তোমার জন্য রাখা
সে কথা তুমি যদি জানতে
বুক চিরে দেখাতে পারলে
লুকিয়ে চোখ তুমিও কানতে।

এই ভালবাসা গিটারের শুরে বাঁধা
নেওন’এর শুর সে তো তুলে যাবেই।
মনের মিছিল এতটা ছোট নয়
তোমার সামনে স্লোগান সে দেবেই ।।
কত ভালবাসা তোমার জন্য রাখা
সে কথা যদি তুমি জানতে
বুক চিরে দেখাতে পারলে
লুকিয়ে চোখ তুমিও কানতে।

আধুনিক

পাগল তোর জন্যরে পাগল এ মন পাগল

পাগল তোর জন্যরে পাগল এ মন পাগল।
মুখে বলি দূরে যা মন বলে থেকে যা
দূরে গেলে মন বোঝে তুই কত আপন।।

মুখ বলে এই দূরে গেলে তুই বেশী কিছু আর হবে কি
মেঘ ঢাকা দিন চলে গেলে দেবে চাঁদ উঁকি
রাতে যখন ওঠে চাঁদ ছুঁতে চাই কেন তোরই হাত।
সারাক্ষণই যাস ছুঁয়ে তুই আমার এ মন।।

মরি ভেবে হায় উথাল পাতাল এই মনের ভেতরে কি আছে
কেন এমন হয় দূরে গেলে তুই চাই কাছে
নির্ঘুম কেন কাটে রাত কেন শুধু আর্তনাদ।
প্রতিদিন কেন তোকে ভেবে এই হৃদয় ক্ষরণ।।

মুখে বলি দূরে যা মন বলে থেকে যা।
দূরে গেলে মন বোঝে তুই কত আপন
পাগল তোর জন্যরে পাগল এ মন পাগল।।

ব্যান্ড

তুমি জানলে না

তুমি জানলে না
আমার হাসির আড়ালে কত যন্ত্রণা, কত বেদনা
কত যে দুঃখ বোনা ।।

পাহাড়ের কান্নাকে ঝর্ণা সবাই বলে
সেই ঝর্ণা ধারায় পাহাড় কষ্টের নদী বয়ে চলে
আমাকে দেখেছো তুমি
দেখনি এই হৃদয়
অনিশ্চয়তার আগুনে পুরে হয়ে গেছে তা ক্ষয়
এতদিন পাশে থেকেও আহা আহাহা
বুঝনি পাথরের নীরবতা
তুমি জানলে না।

তুমি জানলে না
আমার হাসির আড়ালে কত যন্ত্রণা, কত বেদনা
কত যে দুঃখ বোনা
তুমি জানলে না।।