ছায়াছবি

ইশারায় শীষ দিয়ে,

ইশারায় শীষ দিয়ে,আমাকে ডেকো না,
কামনার চোখ নিয়ে,আমাকে দেখো না।
লাজে মরি, মরি মরি গো।

ইশারায় শীষ দিয়ে,আমাকে ডেকো না,
কামনার চোখ নিয়ে,আমাকে দেখো না।

ষোলটি বছর পার হয়েছে,
বুজিনি কখন ও আগে।
জীবনে কখন ও ফাগুন এলে,
মনেতে আগুন লাগে।

সে আগুন তুমি লাগালে যখন,
এখন আমি কি করি,
লাজে মরি, মরি গো।

ইশারায় শীষ দিয়ে,আমাকে ডেকো না,
কামনার চোখ নিয়ে,আমাকে দেখো না।

না পারি রইতে, নাপারি সইতে,
পাগল করে যে দিলে।
নেভে না জ্বালা, এ কোন জ্বালা,
অঙ্গে ছড়িয়ে দিলে।

সে জুড়াতে প্রেমের সাগরে,
দুজনেই ডুবে মরি।
লাজে মরি মরি গো।

ইশারায় শীষ দিয়ে,আমাকে ডেকো না,
কামনার চোখ নিয়ে,আমাকে দেখো না।
লাজে মরি মরি মরি মরি গো।

ছায়াছবি

তুমি আমার হৃদয়ে যদি থাকো,

তুমি আমার হৃদয়ে যদি থাকো,
একদিন যানি কাছে আসবে।
তুমি আমার হৃদয়ে যদি থাকো,
একদিন যানি কাছে আসবে।

এই আমাকেই ভালবাসবে,
যানি আমাকেই শুধু ভালবাসবে,
যানি আমাকেই শুধু ভালবাসবে।
তুমি আমার হৃদয়ে যদি থাকো,
একদিন যানি কাছে আসবে।

এলো মেলো আশা গুলো প্রানে দোলা দেয়,
দুটি চোখে সৃতি গুলো দ্রুব তারা হয়।
এলো মেলো আশা গুলো প্রানে দোলা দেয়,

স্বপ্ন যে সত্যি হয় হয়ে গেলে মন বিনিময়,
স্বপ্ন যে সত্যি হয় হয়ে গেলে মন বিনিময়,
সেই শুখে এই মন ভাসবে,

যানি আমাকে শুধু ভালবাসবে,
যানি আমাকেই শুধু ভালবাসবে
তুমিয়ামার হৃদয়ে যদি থাকো।

গানে গানে দুটি প্রাণ প্রেম খুজে পায়,
সাগরের কাছে নদী তাই ছুটে যায়।
গানে গানে দুটি প্রাণ প্রেম খুজে পায়,
সাগরের কাছে নদী তাই ছুটে যায়।

স্বপ্ন যে সত্যি হয় হয়ে গেলে মন বিনিময়,
স্বপ্ন যে সত্যি হয় হয়ে গেলে মন বিনিময়,
সেই শুভ দিন ফিরে আসবে,

যানি আমাকে শুধু ভালো বাসবে,
যানি আমাকেই শুধু ভালবাসবে।
তুমি আমার হৃদয়ে যদি থাকো,
একদিন যানি কাছে আসবে।
তুমি আমার হৃদয়ে যদি থাকো,
একদিন যানি কাছে আসবে।

ছায়াছবি

পৃথিবীকে ভালোবেসে সুরে সুরে কাছে এসে,

পৃথিবীকে ভালোবেসে সুরে সুরে কাছে এসে,
কত যে আপন হয়েছো।
পৃথিবীকে ভালোবেসে সুরে সুরে কাছে এসে,
কত যে আপন হয়েছো।

যেখানেই থাকো তুমি সেখানেই যাবো আমি,
তুমি তো আমারই রয়েছো।
পৃথিবীকে ভালোবেসে সুরে সুরে কাছে এসে,
কত যে আপন হয়েছো।

তুমি এলে ফুল ফোটে মেঘ ভেঙ্গে চাঁদ ওঠে,
তুমি আছো সবই আছে জীবনে আমার।
তুমি এলে ফুল ফোটে মেঘ ভেঙ্গে চাঁদ ওঠে,
তুমি আছো সবই আছে জীবনে আমার।

যেখানেই থাকো তুমি সেখানেই যাবো আমি,
তুমি তো আমারই রয়েছো।
তুমি এলে ফুল ফোটে মেঘ ভেঙ্গে চাঁদ ওঠে,
তুমি আছো সবই আছে জীবনে আমার।

তুমি এলে ফুল ফোটে মেঘ ভেঙ্গে চাঁদ ওঠে,
তুমি আছো সবই আছে জীবনে আমার।
তুমি সুখ তুমি আশা বুক ভরা ভালোবাসা,
তুমি ছাড়া দুটি চোখে নাই কিছু আর।

যেখানেই থাকো তুমি সেখানেই যাবো আমি,
তুমি তো আমারই রয়েছো।
তুমি এলে ফুল ফোটে মেঘ ভেঙ্গে চাঁদ ওঠে,
তুমি আছো সবই আছে জীবনে আমার।

তুমি এলে ফুল ফোটে মেঘ ভেঙ্গে চাঁদ ওঠে,
তুমি আছো সবই আছে জীবনে আমার।

ছায়াছবি

ছোট্ট একটি গ্রাম,

ছোট্ট একটি গ্রাম মধুমতি তার নাম,
ছোট্ট একটি গ্রাম মধুমতি তার নাম,
সেই গ্রামের একটি মেয়ে হাসতো খেলতো বেড়াতো।
ছোট্ট একটি গ্রাম মধুমতি তার নাম।

সেই গ্রামের পাশে ছিল একটি নদী,
তার সে তীরে সেই মেয়েটি যেত নিরবধি।
অনেক খুশিতে সে দুলতো,
ঢেউয়ের সাথে কথা বলতো।
ভাবতো কেবল একটি মনের মানুষ যদি সে পেত।

ছোট্ট একটি গ্রাম মধুমতি তার নাম,
সেই গ্রামের একটি মেয়ে হাসতো খেলতো বেড়াতো।
ছোট্ট একটি গ্রাম মধুমতি তার নাম।

অনেক আপন হয়ে একটি মানুষ কাছে এলো,
মেয়েটি তারে উজাড় করে প্রেম দিলো।
অনেক আপন হয়ে একটি মানুষ কাছে এলো,
মেয়েটি তাকে উজাড় করে প্রেম দিলো।
সোহাগ দিয়ে জ্বালা দিয়ে,
মানুষটি একদিন হারিয়ে গেলো।

সেই নদীর ঢেউ গুলো আজও দোলে,
বেধনাতে বিষের কালো ফণা তোলে।
এখন সে মেয়েটি কাঁদছে,
বালুচরে খেলাঘর বাধছে।
কেউ দেখে না তার সে মনে,
কোথায় গভীর খতো।

ছোট্ট একটি গ্রাম মধুমতি তার নাম,

ছায়াছবি

আষাঢ় শ্রাবন মানে না তো মন,

আষাঢ় শ্রাবন মানে না তো মন,
ঝর ঝর ঝর ঝর ঝরেছে,
তয়ামকে আমার মনে পড়েছে,
তোমাকে আমার মনে পড়েছে।
আষাঢ় শ্রাবন মানে না তো মন।

আষাঢ় শ্রাবন মানে না তো মন,
ঝর ঝর ঝর ঝর ঝরেছে,
তয়ামকে আমার মনে পড়েছে,
তোমাকে আমার মনে পড়েছে।
আষাঢ় শ্রাবন মানে না তো মন।

আলোর তরীটি বেয়ে দিন চলে যায়,
আধারের মন জ্বলে তারায় তারায়।
আলোর তরীটি বেয়ে দিন চলে যায়,
আধারের মন জ্বলে তারায় তারায়।

আমার এ মন কেন শুধু আকুলায়,
বরষন যেন কোথা হয়েছে।
তোমাকে আমার মনে পড়েছে।
তোমাকে আমার মনে পড়েছে।

আষাঢ় শ্রাবন মানে না তো মন,
ঝর ঝর ঝর ঝর ঝরেছে,
তয়ামকে আমার মনে পড়েছে,

দিও না কখন ও কিছু দিও না আমায়,
সবকিছু পাওয়া হবে পেলে গো তোমায়।
দিও না কখন ও কিছু দিও না আমায়,
সবকিছু পাওয়া হবে পেলে গো তোমায়।

চোখের জলেতে বেয়ে সুখ এলো তাই,
আজ মন মোহনাতে মিশেছে,
তোমাকে আমার মনে পড়েছে,
তোমাকে আমার মনে পড়েছে।

আষাঢ় শ্রাবন মানে না তো মন,
ঝর ঝর ঝর ঝর ঝরেছে,
তয়ামকে আমার মনে পড়েছে,
তোমাকে আমার মনে পড়েছে।
আষাঢ় শ্রাবন মানে না তো মন।

ছায়াছবি

তারে ভুলানো গেলো কিছু তে,

তারে ভুলানো গেলো না কিছু তে,
তারে ভুলানো গেলো না কিছু তে,
ভুল দিয়ে ভালোবাসা দিয়ে,
ভুল দিয়ে ভালোবাসা দিয়ে,
বিষের পরশ দিয়ে ভুলানো গেলো কিছু তে।
তারে ভুলানো গেলো না কিছু তে।
তা রে——-

ভালোবেসে কোনদিন ও সুখ চেও না,
সবকিছু ভুলে যেতে,ভুলে যেও না।
ভালোবেসে কোনদিন ও সুখ চেও না,
সবকিছু ভুলে যেতে,ভুলে যেও না।

ফিরবার পথ নেই তবুও কেন,
মোরে যাওয়া গেলো না যে কিছু তে।
তারে ভুলানো গেলো না কিছু তে।
তা রে——-

যার নাম নিতে চোখে জল এসে যায়,
তার নিয়ে নিয়ে মন ভেঙ্গে যায়।
যার নাম নিতে চোখে জল এসে যায়,
তার নিয়ে নিয়ে মন ভেঙ্গে যায়।

চোখ মুছে ফেল্লে ও মন থেকে তারে,
মুছে ফেলা গেলো না কিছু তে।

তারে ভুলানো গেলো না কিছু তে,
তারে ভুলানো গেলো না কিছু তে,
ভুল দিয়ে ভালোবাসা দিয়ে,
ভুল দিয়ে ভালোবাসা দিয়ে,
বিষের পরশ দিয়ে ভুলানো গেলো কিছু তে।
তারে ভুলানো গেলো না কিছু তে।
তা রে——-

ছায়াছবি

আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল,

আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল,
বাতাসের আছে কিছু গন্ধ।
রাত্রির গাঁয়ে জ্বলে জোনাকি,
তটিনীর বুকে মৃদু ছন্দ।

আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল,
বাতাসের আছে কিছু গন্ধ।
রাত্রির গাঁয়ে জ্বলে জোনাকি,
তটিনীর বুকে মৃদু ছন্দ।

আমার এ দুহাত সুধ রিক্ত,
আমার এ দুচোখ জ্বলে শীক্ত।
আমার এ দুহাত সুধ রিক্ত,
আমার এ দুচোখ জ্বলে শীক্ত।

বুক ভরা নীরবতা নিয়ে অকারণ,
বুক ভরা নীরবতা নিয়ে অকারণ,
আমার এ দুয়ার হল বন্দ।

আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল,
বাতাসের আছে কিছু গন্ধ।
রাত্রির গাঁয়ে জ্বলে জোনাকি,
তটিনীর বুকে মৃদু ছন্দ।

ভেবে তো পাইনি আমি কি হোল আমার,
লজ্জায় প্রহরী কেন খোলে নাকো দার।
ভেবে তো পাইনি আমি কি হোল আমার,
লজ্জায় প্রহরী কেন খোলে নাকো দার।

বুজি না কেমন করে বলবো,
খেয়ালী কতোই ভেসে চলবো।
বুজি না কেমন করে বলবো,
খেয়ালী কতোই ভেসে চলবো।

বলি বলি করে তবু বলা হল না।
বলি বলি করে তবু বলা হল না।
যানিনা কীসে এতো দন্দ।

আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল,
বাতাসের আছে কিছু গন্ধ।
রাত্রির গাঁয়ে জ্বলে জোনাকি,
তটিনীর বুকে মৃদু ছন্দ।

ছায়াছবি

কত ভালো লাগে এই দিন এই পৃথিবী,

ছেলে=
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী,
যেন পাখীদের মত ডানা মেলেছি নীলে।
হাঁসি গানে একে যাই প্রানের ও ছবি,
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী।
মেয়ে=
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী,
যেন পাখীদের মত ডানা মেলেছি নীলে।
হাঁসি গানে একে যাই প্রানের ও ছবি,
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী।
হা হা হা আ আ আ হা হা হা—
ছেলে=
চলার বেগে আমরা যেন ঝর্না কলরব,
ঢেউয়ের তালে নেচে চলি ছন্দে জাগে দোল।
মেয়ে=
মনের কোকিল বাঁশীর মতো বলছে মধু বোন,
ফাগুন হয়ে ফুটায় যতো স্বপ্ন মাধবী-।
ছেলে=
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী,
যেন পাখীদের মত ডানা মেলেছি নীলে।
হাঁসি গানে একে যাই প্রানের ও ছবি,
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী।
হা হা হা হা আ আ আ হা হা হা হা,

জলের লিখন মুছে যাবে হয়তো কোনদিন,
প্রানের গোলাপ ঝরে যাবে গন্ধ হবে লীন।
ক্ষণিক সুখের সৃতি তবু রইবে অমলিন,
এমন করে চিরদিনই আনবে সুরভি।
মেয়ে=
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী,
যেন পাখীদের মত ডানা মেলেছি নীলে।
হাঁসি গানে একে যাই প্রানের ও ছবি,
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী।

মেয়ে=
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী,
যেন পাখীদের মত ডানা মেলেছি নীলে।
হাঁসি গানে একে যাই প্রানের ও ছবি,
কত ভালো লাগে এইদিন এই পৃথিবী।
ছেলে=
হা হা হা আ আ আ হা হা হা—

ছায়াছবি

বলে দাও মাটীর পৃথিবী

মাটীর পৃথিবী তুমি বলো,
আমার কি অপরাধ,
নেই কি আমার তোমার বুকে,
কোন আশা কোন সাধ।

বলে দাও মাটীর পৃথিবী,
কোথা শান্তি আমার জীবনে,
কতদিন এমন করে,
আমি জ্বলবো দুঃখের ধহনে।
বলে দাও মাটীর পৃথিবী,
কোথা শান্তি আমার জীবনে,

আলো ঝল-মল বাসর আমার,
ভরিয়ে দিলো বাথা নিরাশার।
আলো ঝল-মল বাসর আমার,
ভরিয়ে দিলো বাথা নিরাশার।
ভরিয়ে দিলো নিরাশা-

মধু স্বপ্ন ভেঙ্গে গেলো,
কেন অশ্রু আমার নয়নে।
বলে দাও মাটীর পৃথিবী,
কোথা শান্তি আমার জীবনে।

কতো ছন্দে গানে দুটি মন,
কতো ছন্দে গানে দুটি মন,
দেখেছিনু মিলন ও স্বপন,
দেখেছিনু মিলন ও স্বপন।

কেন আমার সেই হাঁসি গান,
কান্না হয়ে ভাষায় এ প্রাণ,
কেন আমার সেই হাঁসি গান,
কান্না হয়ে ভাষায় এ প্রাণ,
কান্না হয়ে ভাসে প্রাণ।

কেন ছন্দ থেমে গেলো,
কেন গন্ধ আমার জীবনে।
বলে দাও মাটীর পৃথিবী,
কোথা শান্তি আমার জীবনে,
কতদিন এমন করে,
আমি জ্বলবো দুঃখের ধহনে।
আমি জ্বলবো দুঃখের ধহনে।
আমি জ্বলবো দুঃখের ধহনে।

ছায়াছবি

তুমি বুইজা কেনে বুজো না

তুমি বুইজা কেনে বুজো না,
তুমি যাইনা কেন যান না,
নাম ধরিয়া বাঁশী আর বাজাইও না।

তুমি বুইজা কেনে বুজো না,
তুমি যাইনা কেন যান না,
নাম ধরিয়া বাঁশী আর বাজাইও না।

বাঁশীর সুর দিয়া যে ম্ন কাইড়া নেয়,
বাঁশীর সুর দিয়া যে ম্ন কাইড়া নেয়,
ও ঘরে রইতে আমি পারি না,
ঘরে রইতে আমি পারি না।
নাম ধরে বাঁশী আর বাজাইও না।

তুমি বুইজা কেন বুজো না,
নাম ধরিয়া বাঁশী আর বাজাইও না।

বন্দু তোমার বড়ই কঠিন হিয়া,
এই পুরা দেহ জ্বালাও কেন হায়,
নির্দয়া হইয়া,
হইতা যদি আমার মতো,
বুজতে ভাজ্ঞের পোড়া যন্ত্রনা,
বুজতে প্রেমের পোড়া যন্ত্রনা।

নাম ধরিয়া বাঁশী আর বাজাইও না।
তুমি বুইজা কেনে বুজো না,
তুমি যাইনা কেন যান না,
নাম ধরিয়া বাঁশী আর বাজাইও না।

ছায়াছবি

দিনের আছে সূর্য বন্ধু

দিনের আছে সূর্য বন্ধু রাতের আছে চন্দ্র,
আমার আছো তুমি বন্ধু আমার হইয়া রইও।

পাখীর আছে গান রে বন্ধু গাঙ্গের আছে বান,
আমার আছো তুমি বন্ধু পরানের পরান।

দিনের আছে সূর্য বন্ধু রাতের আছে চন্দ্র,
আমার আছো তুমি বন্ধু আমার হইয়া রইও।

পাখীর আছে গান রে বন্ধু গাঙ্গের আছে বান,
আমার আছো তুমি বন্ধু পরানের পরান।

দুই নয়নের কাজল দিয়া তোমায় রাখি বান্দিয়া,
যাইতে কভু পারবা নাকো আমারে ছাড়িয়া।

হিয়ার মাঝে—-
হিয়ার মাঝে লিখা রাখলাম এই কথা না কইও।

পাখীর আছে গান রে বন্ধু গাঙ্গের আছে বান,
আমার আছো তুমি বন্ধু পরানের পরান।

দিনের আছে সূর্য বন্ধু রাতের আছে চন্দ্র,
আমার আছো তুমি বন্ধু আমার হইয়া রইও।

এই জীবনের কাবিন দিয়া তোমায় নেবো তুলিয়া,
এই জীবনের কাবিন দিয়া তোমায় নেবো তুলিয়া,
সোহাগ দিবা সুখ দিবা ঘরের লক্ষ্মী হইয়া।

আশায় আশায়–
আশায় আশায় আমি রইলাম তোমার সাথী হইয়া।

দিনের আছে সূর্য বন্ধু রাতের আছে চন্দ্র,
আমার আছো তুমি বন্ধু আমার হইয়া রইও।

পাখীর আছে গান রে বন্ধু গাঙ্গের আছে বান,
আমার আছো তুমি বন্ধু পরানের পরান।

আধুনিক

মুছে যাওয়া দিনগুলি আমায় যে পিছু ডাকে

মুছে যাওয়া দিনগুলি আমায় যে পিছু ডাকে,
সৃতি যেন আমার হৃদয়ে,
বেধনার রঙে রঙে ছবি আঁকে।
মুছে যাওয়া দিনগুলি আমায় যে পিছু ডাকে,
সৃতি যেন আমার হৃদয়ে রঙে রঙে ছবি আঁকে।

মনে পড়ে যায়, মনে পড়ে যায়,
মনে যায় সেই প্রথম দেখার ও সৃতি,
মনে আয় সেই হৃদ্যয় দেওয়ার প্রিতি।
দুজনার দুটি পথ মিসে গেলো এক হয়ে,
নতুন পথের ও বাকে।

মুছে যাওয়া দিনগুলি আমায় যে পিছু ডাকে,
সৃতি যেন আমার হৃদয়ে,
বেধনার রঙে রঙে ছবি আঁকে।

সে এক নতুন দেশে,
দিন গুলি ছিল যে মুখর কতো রঙে।
সেই সুর কাঁদে আজ ই আমার প্রানে,
ভেঙ্গে গেছে হায়, ভেঙ্গে গেছে হায়।

ভেঙ্গে আজ সেই মধুর ও মিলন মেলা।
ভেঙ্গে গেছে আজ সেই হাঁসি আর রঙের ও খেলা।
কোথায় কখন কবে কোন তারা ঝরে গেলো,
আকাশ কি মনে রাখে।

মুছে যাওয়া দিনগুলি আমায় যে পিছু ডাকে,
সৃতি যেন আমার হৃদয়ে,
বেধনার রঙে রঙে ছবি আঁকে।

মুছে যাওয়া দিনগুলি আমায় যে পিছু ডাকে,
সৃতি যেন আমার হৃদয়ে,
বেধনার রঙে রঙে ছবি আঁকে।

আধুনিক

খুব জানতে ইচ্ছে করে

খুব জানতে ইচ্ছে করে,
খুব জানতে ইচ্ছে করে,
তুমি কি সেই আগের মতো আছো,
তুমি কি সেই আগের মতো আছো,
নাকি অনেক খানি বদলে গেছো।
জানতে ইচ্ছে করে,খুব জানতে ইচ্ছে করে।

এখন ও কি প্রথম সকাল হলে,
স্নানটি সেরে পুজার ফুল তুলে,
ব্যাকুল পিয়াসে আমারই কথা ভাবো,
বসে ঠাকুর ঘরে। জানতে ইচ্ছে করে,
খুব জানতে ইচ্ছে করে।

এখন ও কি সন্ধ্যা বেলা,
আমার বাড়ি ফেরার সময় পেরিয়ে গেলে,
অনেক অভিমানে চোখ দুটো কি জলে ভরে।
জানতে ইচ্ছে করে,খুব জানতে ইচ্ছে করে।

এখন ও রাত নিঝুম হলে,
সরত কাহিনী পাশে খোলা পড়ে থাকে,
ব্যাকুল পিয়াসে, আমারই পিয়াসে,
অন্তর কেঁদে মোরে, জানতে ইচ্ছে করে।
খুব যানতে ইচ্ছে করে।

তুমি কি সেই আগের মতো আছো,
তুমি কি সেই আগের মতো আছো,
নাকি অনেক খানি বদলে গেছো।
জানতে ইচ্ছে করে,খুব জানতে ইচ্ছে করে।

ছায়াছবি

এনেছি আমার সতজনমের প্রেম

এনেছি আমার শত জনমের প্রেম
আঁখি জলে গাঁথা মালা ;ওগো সুদূরিকা,
আজ ও কি হবে না শেষ তোমারে চাওয়ার পালা।।
এনেছি আমার শত জনমের প্রেম
আঁখি জলে গাঁথা মালা।

স্বপনে আমার সাথীহারা রাতে,
স্বপনে আমার সাথীহারা রাতে,
পেয়েছি তোমায় পলকে হারাতে
তোমারে খুঁজিতে যে দীপ জ্বেলেছি হায়
বিফলে সে দীপ জ্বালা।।
তোমারে চাওয়ার ও পালা।

এনেছি আমার শত জনমের প্রেম
আঁখি জলে গাঁথা মালা ;ওগো সুদূরিকা,
আজ ও কি হবে না শেষ তোমারে চাওয়ার পালা।।

মনে মনে তবু স্বপন বাসর গড়ি,
এনেছি হৃদয় মিলনের গানে ভরি।
মনে মনে তবু স্বপন বাসর গড়ি,
এনেছি হৃদয় মিলনের গানে ভরি।

দূরে আছ তুমি তবু দূরে নহ,
স্মরণ সুধায় ভরেছ বিরহ
প্রেম যেন তব সুদূর গগন হতে,
চাঁদের জোছনা ঢালা।।
তোমারে চাওয়ার ও পালা।

এনেছি আমার শত জনমের প্রেম
আঁখি জলে গাঁথা মালা ;ওগো সুদূরিকা,
আজ ও কি হবে না শেষ তোমারে চাওয়ার পালা।।

আধুনিক

বড় সাধ যাগে একবার তোমায় দেখি

বড় সাধ যাগে একবার তোমায় দেখি,
কতকাল দেখিনি তোমায়–
একবার তোমায় দেখি।
বড় সাধ যাগে একবার তোমায় দেখি,

সৃতির জানালা খুলে চেয়ে থাকি,
সৃতির জানালা খুলে চেয়ে থাকি,
চোখ তুলে যতটুকু আলো আসে,
সে আলোয় মন ভরে যায়,

কতকাল দেখিনি তোমায়–
একবার তোমায় দেখি।
বড় সাধ যাগে একবার তোমায় দেখি,
কতকাল দেখিনি তোমায়–

আমার এ অন্ধকারে কতো রাত কেটে গেল,
আমি আধারেই রয়ে গেলাম,
আমার এ অন্ধকারে কতো রাত কেটে গেল,
আমি আধারেই রয়ে গেলাম,

তবু ভরের স্বপ্ন থেকে সেই ছবি,
ভরের স্বপ্ন থেকে সেই ছবি।
যাই একে রঙে রঙে সুরে সুরে,
ওরা যদি গান হয়ে যায়,

কতকাল দেখিনি তোমায়–
একবার তোমায় দেখি।
বড় সাধ যাগে একবার তোমায় দেখি,
কতকাল দেখিনি তোমায়–