আধুনিক

রূপের ঐ প্রদীপ জ্বেলে কী হবে তোমার

রূপের ঐ প্রদীপ জ্বেলে কী হবে তোমার
কাছে কেউ না এলে আর
মনের ঐ এত মধু কেন জমেছে

যদি কেউ না থাকে নেবার।

ও নূপুর না বাজালে কারো বাঁশিতে
ও হাসি না মেশালে কারো হাসিতে।

তোমার ঐ সোনার ফাগুন কী দাম পাবে।
যদি কেউ না থাকে দেবার।।

এ জীবন না জড়ালে কারো জীবনে
এ স্বপন না ছড়ালে কারো স্বপনে।

রঙিন ঐ দিনগুলি কী এমন রবে।
সাড়া কেউ দিবে না যে আর।

রূপের ঐ প্রদীপ জ্বেলে কী হবে তোমার
কাছে কেউ না এলে আর
মনের ঐ এত মধু কেন জমেছে
যদি কেউ না থাকে নেবার।

লালন

ভজরে আনন্দের গৌরাঙ্গ

ভজরে আনন্দের গৌরাঙ্গ।
যদি ত্বরিতে বাসনা থাকে
ধর রে মন সাধুর সঙ্গ।।

সাধুর গুণ যায় না বলা
শুদ্ধ চিত্ত অন্তর খোলা।
সাধুর দরশনে যায় মনের ময়লা
পরশে প্রেমতরঙ্গ।।

সাধুজনার প্রেম হিল্লোলে
কত মানিক মুক্তা ফলে
সাধু যারে কৃপা করে
প্রেমময় দেয় প্রেমঅঙ্গ।।

এক রসে হয় প্রতিবাদী
এক রসে ঘুরছে নদী।
এক রসে নৃত্য করে
নিত্যরসের গৌরাঙ্গ।।

সাধুর সঙ্গগুণে রং ধরিবে
পূর্ব স্বভাব দূরে যাবে।
লালন বলে পাবে প্রাণের গোবিন্দ
কররে সৎসঙ্গ।।

বিবিধ

একটু যদি তাকাও তুমি

একটু যদি তাকাও তুমি
মেঘগুলো হয় সোনা,
আকাশ খুলে বসে আছি
তাও কেন দেখছো না?

একই আকাশ মাথার উপর
এক কেন ভাবছো না?
আকাশ খুলে বসে আছি
তাও কেন দেখছো না?

আসবে বলে ঐ যে দেখো
মেঘেরা দাঁড়িয়ে,
আকাশটাকে দেখি চলো
মেঘটাকে তাড়িয়ে!

মেঘের মতো হাটবো দুজন
হাত কেন রাখছো না?
আকাশ খুলে বসে আছি,
তাও কেন দেখছো না?

চলো দুজন স্বপ্ন দেখি
এক অনুভব নিয়ে,
যা কিছু আজ মনের মতো
আনব যে ছিনিয়ে!

আমার মতো কেন তুমি
মন খুলে রাখছো না?
আকাশ খুলে বসে আছি,
তাও কেন দেখছো না?

একটু যদি তাকাও তুমি
মেঘগুলো হয় সোনা,
আকাশ খুলে বসে আছি
তাও কেন দেখছো না?

একই আকাশ মাথার উপর
এক কেন ভাবছো না?
আকাশ খুলে বসে আছি
তাও কেন দেখছো না?