Uncategorized

কালো উদ্বেগ

নগরের নির্বাণ নিস্তব্ধতায়
অস্পষ্ট স্মৃতির অজীর্ণতা
মধ্যহ্নের তারাগুলো হেটে যায়
রয় শরীরের অবিভাজ্য অশিষ্টতা
সন্ধার অন্ধকার জানালাটায়
দিয়ে যায় অংশীদারী আন্তরিকতা
কোলাহল সব শুনে দুরে পালায়
শুনে অন্তর্নিহিত অপভাষা

কালো ঘোরার ক্ষুরের আঘাত
গেথে গেছে তোমার ছায়ায়
কালো মেঘে ধোয়া রোদ
তোমার দরজায় এসে দারায়
তোমার ছায়া তোমায় দেখে
দুরে কোথাও হারায়
কালো সেই শকুন দুটো
দেখো ঘুরছে চোখের তারায়

Uncategorized

কেউ কাঁদবেনা

আমাকে দুরে কোথাও নিয়ে চলো , যেখানে কেউ থাকবে না ।
তোমার নাম ধরে চিৎকার করলে কেউ অবাক হয়ে দেখবে না ।
তোমার চোখের ভিতর তাকালে আর কাওকে দেখব না ।

চোখদুটোর নগ্নতা বেড়ে চলেছে সীমাহীনভাবে , পাতাদুটো খেয়ে গেছে অনিদ্রায় ।
নিশ্বাসে শুধু মরা গন্ধ ভাসে , হয়ত ভিতরে ভিতরে সব পচে গলে গেছে হতাশায় ।
হারানোর অজীর্ণ জলাবর্ত কল্পনায় , ডুবে হয় এক জনম পরিত্যক্ত জলাশয় ।

আমাকে দুরে কোথাও নিয়ে চলো ,
যেখানে কেউ কাঁদবে না ।
তোমার ঠোটে ঠোট রাখলে আর ঘড়ির কাটা ঘুরবে না ।
কালো মেঘের ছায়ার নাগালে তুমি আমি আর থাকব না ।

আধুনিক

মুক্তি পাবে

এমনি কোন এক ভেজা
রাতের মাঝখানে
এই চূর্ণ দেহখানি মুক্তি পাবে,
তোমার খোঁজে বেরিয়ে পরা
আত্মার কাছ থেকে
এই ঝলসানো মনের কাছ থেকে।

বিভ্রান্তির স্তম্ভে দাড়িয়ে তোমায়
দেখেছি উচ্ছাসিত আসক্তিতে,
বিদ্বেষী কোন এক কন্টক শয্যায়
ডুবেছিলে পরিত্যাক্ত শ্বৈরাতন্ত্রে।

এমনি কোন এক ভেজা
রাতের মাঝখানে
এই চূর্ণ দেহখানি মুক্তি পাবে

মুক্তি পাবে
মুক্তি পাবে
মুক্তি পাবে
মুক্তি পাবে