তোরা যে যা বলিস ভাই, আমার সোনার হরিণ চাই।

মনোহরণ চপলচরণ সোনার হরিণ চাই॥

সে-যে চমকে বেড়ায় দৃষ্টি এড়ায়, যায় না তারে বাঁধা।

সে-যে নাগাল পেলে পালায় ঠেলে, লাগায় চোখে ধাঁদা।

আমি ছুটব পিছে মিছে মিছে পাই বা নাহি পাই–

আামি আপন-মনে মাঠে বনে উধাও হয়ে ধাই॥

তোরা পাবার জিনিস হাতে কিনিস, রাখিস ঘরে ভরে–

যারে যায় না পাওয়া তারি হাওয়া লাগল কেন মোরে।

আমার যা ছিল তা গেল ঘুচে যা নেই তার ঝোঁকে–

আমার ফুরোয় পুঁজি, ভাবিস, বুঝি মরি তারি শোকে?

আমি আছি সুখে হাস্যমুখে, দুঃখ আমার নাই।

আমি আপন-মনে মাঠে বনে উধাও হয়ে ধাই॥