একদিন কোনো অন্ধ ভিখিরী
তার এক হাত ধরে
ব্যস্ত সড়ক পার করে দেব
একটু সময় করে

আমি সুন্দর হবো সুন্দর হবো
একটু একটু করে
নেবো এই পৃথিবীর সব সুন্দর
আমার দু’চোখ ভরে

আমি সুন্দর হবো সুন্দর হবো
একটু একটু করে
আজ জগতের যত যন্ত্রণা দিয়ে
হৃদয় সাজাবো তোরে

জেনো গোলাপ কাঁটার চুম্বনে
এই অধরে ফুটবে রক্ত
আমি ঝরাপাতা দিয়ে মালা গেঁথে কবো
আমি যে তোমারই ভক্ত

আমি ফুলের মতন কুঁড়িয়ে তুলবো
আবর্জনার স্তুপ
দেখে চম্‌কে যাব না দগ্ধ কারোর
ঝল্‌সানো পোড়া মুখ

আমি সুন্দর হবো সুন্দর হবো একটু একটু করে
আমি অসুন্দরকে আমার আদরে পাল্টাবো সুন্দরে
যত নিয়তির ভুল শুদ্ধ করবো মানুষ হবার জোরে

কোন পথের ধারের নেড়ী কুকুরের
কদাকার শরীরে
পশম ঝরানো পুঁজ-ভরা ক্ষতে
বুলাবো হাত আদরে
আমি জানিনা কেন যে মানুষ এখনো
আপন করেনি তোরে
আমি মানুষের হয়ে ক্ষমা চেয়ে নেবো
দু’টো হাত জড়ো করে

জানি কোন বৃদ্ধের বহুবার বলা
গল্পটা একঘেয়ে
আমি আবার শুনবো বহুবার শোনা
গল্পটা মন দিয়ে

কোন অচেনা শিশুর ধুলোমাখা চুলে
আঙ্গুলে কাটবো সিঁথি
আমি আমার ব্যাথায় পুড়িয়ে ফেলবো
তোমার ব্যাথার স্মৃতি

আমি সুন্দর হবো সুন্দর হবো একটু একটু করে
আমি তোমার আঁধার আমার আলোয় দেবো ঝল্‌মল্‌ করে
আমি স্বীকার করবো আমার যা ভুল দু’চোখে মিনতি ভরে

ছিলো যে বন্ধু বিশ্বাস ভেঙ্গে
শত্রু সে কালে কালে
সেই শত্রুকে মনের ভুলে
ডাকবো বন্ধু বলে
আমি সুন্দর হবো সুন্দর হবো
একটু একটু করে
আমি অহঙ্কারের দেয়ালগুলোকে
দেবো চুরমার করে

আমি বারেবারে তোর অভিমান ভেঙ্গে
ফেরাতে আসবো তোরে
আমি কিছুতেই তবু কিছুতেই আর
হারাতে দেবোনা তোরে . . .