কি করেছে তোমার বাবা, কি করেছে স্বামী
গল্প সেসব তোমার চেয়ে কম জানিনা আমি
তোমার যত কীর্তিকলাপ সেও তো আছে জানা
ইচ্ছে করেই মুখ খুলি না, বলতে ওসব মানা

স্বামী বাবার নাম ভাঙিয়ে আর কতকাল খাবে
এবার ওদের ঘুমোতে দাও, আত্মা শান্তি পাবে
তাঁদের প্রতি আমার সকল শ্রদ্ধা রেখে বলি
খুব বেশী দিন আমার চোখে যায় না দেয়া ধূলি

আমার মাথায় কাঁঠাল ভেঙে খাওয়ার দিন তো শেষ
নাম আমার জনগণ, আমি’ই বাংলাদেশ

বৃক্ষের নাম দিয়ে কি? ফলেই পরিচয়
রাজারা মিছেই কেবল কথার খৈ ফোটায়
কেবলই নিজের গীতে বিভোর হয়ে রয়
দেবতা ফেরেশতা সব, ভুল কি তাদের হয়?

অপরের নিন্দা করেই ভাঙলে কেবল গলা
নির্বাচনের আগে তোমার শতেক ছলাকলা
কখনো শান্তি-প্রীতি, কখনো বিক্ষোভ
আসলে তো জানি সবই সিংহাসনের লোভ

আমায় দেখে ভাবছো বুঝি বুদ্ধু-বোকা-সোজা
সময়ে টের পাবে ঠিক আসলে কে রাজা

তোমার ওই মনটা বড় বড্ড বেশী ভুলো
তোমার ওই ইশ্তেহারে কি কি যেন ছিলো
যদি দেখি হাতের আঙুল, ভুলে তাদের কাজ
দিনে দিনে ফুলে ফেঁপে হচ্ছে কলাগাছ

যদিও তোমার চোখের চশমাটা রঙীন
চোরেদের দশদিন আর গেরস্থের একদিন
আমাকে রাখলে খুশি, মাথায় তুলে রাখি
নরম নরম গদির ‘পরে বসতে তোমায় ডাকি

ধাপ্পাবাজি টের পেলে ঠিক পাল্টে দেবো মন
সোনা দিয়ে মুড়োলে লাভ হবে না তখন