এক যে ছিল রাজা হবু চন্দ্র তাহার নাম
ভারতের অধিশ্বর দিল্লীতে তার ধাম

প্রধান মন্ত্রী তার গবু চন্দ্র শুভ নাম
বুদ্ধিতে ভীষণ ধার দেশ জোড়া তার নাম।।

একদিন ডেকে বললেন রাজা মন্ত্রীমশাই শুনুন
এই দেশটা ভীষণ ধুলোয় ভরা একটা কিছু করুন
চলতে ধুলো ফিরতে ধুলো হাটতে পায়ে ধুলো
খাবারও ধুলোয় ভরা আর মগজেতেও ধুলো
তাড়াতাড়ি কিছু করুন তাড়াতাড়ি কিছু করুন
মন্ত্রীমশায় বললেন একটু সবুর করুন

পরের দিন লাখ খানি ঝাড়ুদারের ঝাড়ুর ঘায়
উঠলো যে ধুলোর ঝড় প্রান রাখা যে দায়
রাজামশায় তখন ক্যাবিনেট মিটিং ডেকে
বললেন এই আপনারা বার করুণ উপায়

মন্ত্রনা মন্ত্রীরা দিলেন জল ঢাল জল ঢাল
তার ফলে কাঁটা আর প্যাকে দেশটা ভরে গেল
নদী নালা সব শুকালো পুকুরে মাছ মলো
আর জল হাওয়ায় কাদায় রাজার ভীষণ সর্দি হল
ওরে বাবা কোথায় যায় রে ওরে বাবা মারা যায় রে
এক ফোটা ঘটে বুদ্ধি মন্ত্রীদের কী নাইরে

পন্ডিতপ্রবর তখন বললেন শোন দিয়া মন
সারাটা দেশ চরণ চাপড়ায় মুড়ে দাও
বললেন রাজামশায় আইডিয়াটা মন্দ নয়
যত মুচি চামার সব্বাইকে খবর দাও

পার্লামেন্টে যেই না এই প্রস্তাবটা রাখা হল
এমপিরা সব প্রতিবাদে হৈ হৈ করে বললো
গো মাতাকে রক্ষা করা দ্বায়িত্ব যে রাজার
কি না তারই চামড়ায় ঢাকবে জমি হয় কিযে অনাচার
হরে হরে ভোম ভোম ভোম ভোম
হরে হরে ভোম ভোম ভোম ভোম
রাজামশায় বললেন আমি ব্যতিক্রম করলুম

এক মুচি দরিদ্র বললো শোনেন হে ভদ্র
সবিনয় নিবেদন শুনুন আমায়
পৃথিবী না ঢেকে পা-টা চামড়ায় দিন ঢেকে
শুনে রাজা বললেন চুপ কর বেটা চামাড়

বললেন রাজা এই কথাটা অনেক বছর ধরে
আমার মাথায় ছিল বেটা টের পেল কী করে
সেই থেকে দেশেতে জুতোর প্রচলন হল
ধন্য ধন্য মহারাজার দেশে পড়ে গেল
ধন্য হে ধন্য রাজা ধন্য হে মহারাজা
সবাই ধন্য ধন্য বলো আর আমার কথা ফুরালো