দাম দিয়ে কিনেছি বাংলা কারো দানে পাওয়া নয়

দাম দিয়ে কিনেছি বাংলা কারো দানে পাওয়া নয়
দাম দিছি প্রাণ লক্ষকোটি জানা আছে জগৎময়।।

১৭৫৭ সনে ভাইবা দেখেন পড়বে মনে,
দাম দিছি পলাশীর মাঠে ইতিহাস তাঁর সাক্ষী রয়।।

সেইবারে জানিল বিশ্ব আমরা কত ধনী রে
দান করিতে লক্ষ জীবন তুচ্ছ বলে গণি রে,
১৮৫৭ সালে দাম দিছি ফের জানে মালে
পিছন ফিরে চাইলে পরে ১০০ বছর কথা কয়।।

বৃটিশ গেল সঁইপা গেল জল্লাদেরই হাতে রে
তারা মোদের খুন কইরাছে নানান অজুহাতে রে,
লক্ষ তরুণ হাসি হাসি খাইছে গুলি পরছে ফাঁসি
তবু না দুঃখিনী বাংলা তোমার আমার কারো হয়।।

বাহান্নতে মুখের ভাষা কিনছি বুকের খুনে রে
বরকতেরা রক্ত দিছে বিশ্ব অবাক শুনে রে,
দিছি রক্ত জন্মাবধি সাগর-সাগর নদী-নদী
রক্তে বাংলা লাল কইরাছি__ এই কথা তো মিথ্যা নয়।।

দাম দিয়াছি ৭১এ পঁচিশা মার্চ রাতে রে
সর্বহারা করছে আমায় পশ্চিমা ডাকাতে রে,
বাপের সামনে বলুক তো ঝুট, মেয়ের ইজ্জত হয় নি কি লুট?
দুঃখে বাংলার পদ্মা-মেঘনা-যমুনা জে উজান বয়।।

দাম দিয়াছি মায়ের অশ্রু, বোনের সম্ভ্রম রে
বলতে কি কেউ পারো তোমরা, সে দাম কারো কম রে?
কত কূলের কূলাঙ্গনা নাম নিয়াছে বীরাঙ্গনা
আজো বাংলার আকাশ বাতাস তারই শোকে উদাস হয়।।

দাম দিয়াছি বুদ্ধিজীবী নামি দামি লোক কত!
এ জন্মে ফুরাবে ভাই আমার বুকের সেই ক্ষত?
১৯৭১ সালে ষোলই ডিসেম্বর সকালে
অবশেষে দুঃখিনী এই বাংলা মা যে আমার হয়।।